05262020মঙ্গল
শুক্রবার, 08 মে 2020 20:04

রাষ্ট্র ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করলেই ব্যবস্থা

 সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। ছবি: সংগৃহীত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। ছবি: সংগৃহীত
নিউজ ফ্ল্যাশ ডেস্ক: সরকার বা রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করে, জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে হেয়প্রতিপন্ন করে, এমন কোনো পোস্ট, ছবি, অডিও-ভিডিও আপলোড, কমেন্ট, লাইক ও শেয়ার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে করা থেকে সরকারি চাকরিজীবীদের বিরত থাকতে বলা হয়েছে। অন্যথায় এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মচারী ব্যক্তিগতভাবে দায়ী হবেন বলে জানানো হয়েছে। ‘সরকারি প্রতিষ্ঠানে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার নির্দেশিকা, ২০১৯ (পরিমার্জিত সংস্করণ)’ অনুসরণ করার বিষয়ে পরিপত্র জারি করে বৃহস্পতিবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সর্তক করে দিয়েছে। পরিপত্রে বলা হয়েছে, জাতীয় ঐক্য ও চেতনার পরিপন্থী কোনো রকম তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। অন্য কোনো রাষ্ট্র বা রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য সম্বলিত কোনো পোস্ট, ছবি, অডিও বা ভিডিও আপলোড, কমেন্ট, লাইক, শেয়ার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। কোনো সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লাগতে পারে, এমন বা ধর্মনিরপেক্ষতা নীতির পরিপন্থী কোনো তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ করা যাবে না। জনমনে অসন্তোষ বা অপ্রীতিকর মনোভাব সৃষ্টি করতে পারে, এমন কোনো বিষয় লেখা, অডিও বা ভিডিও ইত্যাদি প্রকাশ বা শেয়ার করা যাবে না। এছাড়া ভিত্তিহীন, অসত্য ও অশ্লীল তথ্য প্রচার থেকে বিরত থাকতে হবে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট বা আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটতে পারে, এমন কোনো পোস্ট, কমেন্ট, লাইক ও শেয়ার করা যাবে না। জনমনে অসন্তোষ বা অপ্রীতিকর মনোভাব সৃষ্টি করতে পারে, এমন কোনো বিষয়েও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা যাবে না। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে বিষয়বস্তু ও বন্ধু নির্বাচনে চাকরিজীবীদের সতর্কতা অবলম্বন এবং অপ্রয়োজনীয় ট্যাগ, রেফারেন্স বা শেয়ার করা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। যদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অপব্যবহার বা নিজ অ্যাকাউন্টে ক্ষতিকারক কোনো কনন্টেট পাওয়া যায়, তাহলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি দায়ী হবেন। এজন্য প্রচলিত আইন ও বিধিবিধান অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
পড়া হয়েছে 19 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: শুক্রবার, 08 মে 2020 20:16