01232022রবি
সোমবার, 10 জানুয়ারী 2022 08:40

ভারত ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও দূত

ভারত ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও দূত ফাইল ফটো।
কূটনৈতিক রিপোর্টার: করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষিতে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমণ না করার অভিন্ন অনুরোধ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন এবং ঢাকাস্থ দেশটির হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। রাজধানীর মহাখালীস্থ শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে বিদেশি কূটনীতিক ও ঢাকায় নিযুক্ত আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিদের করোনা টিকার বুস্টার ডোজ প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উভয়ের তরফে এ অনুরোধ করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা আমাদের দেশের নাগরিকদের ওভার বর্ডার চলাচলে নিরুৎসাহিত করছি, বিশেষ করে ভারতে। কারণ সেখানে করোনা সংক্রমণের হার খুবই বেশি। আর আমরা সব সময়ই আমাদের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শ মতো ব্যবস্থা নিচ্ছি। নিজে করোনার বুস্টার ডোজ গ্রহণ শেষে ভারতীয় হাইকমিশনার জানান, উদ্ভূত ওমিক্রন পরিস্থিতিতে বিদেশ ফেরত ভারতীয়সহ যে কারও ভারতে প্রবেশে ৭ দিন কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ১১ই জানুয়ারি থেকে দিল্লির ওই আদেশ কার্যকর হতে চলেছে। এ অবস্থায় বাংলাদেশি বৈধ ভিসাধারীদের জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ভারত ভ্রমণকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। তবে ভারতের করোনা পরিস্থিতি যাই হোক এবার সীমান্ত খোলা রাখার বিষয়ে ইতিবাচক অবস্থানে রয়েছে দিল্লি। অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওমিক্রনে আতঙ্কিত না হয়ে সবাইকে টিকা গ্রহণ এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের সংক্রমণ বাড়তে থাকলেও ফের লকডাউন দেয়ার কোনো পরিকল্পনা এখনো সরকারের নেই। লকডাউন সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী মোমেন বলেন, ‘আমরা এটা এখনো ভাবছি না। এটার কারণও নেই। তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।’ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, করোনার নতুন ঢেউ বা উচ্চ হারের সংক্রমণ আমাদের ভাবিয়ে তুলেছে। বিশ্বব্যাপী এ হার উদ্বেগজনক। তবে আমরা লকডাউনের কথা একদম চিন্তা করছি না। এটা নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। কারণ আমাদের দেশে ওমিক্রন সংক্রমণের হার খুবই কম ও নিয়ন্ত্রিত। এরপরও করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সরকার সচেতন রয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আমরা আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করছি। আমাদের টিকাদানের অবস্থা ভালো। ৩১০ মিলিয়ন টিকা এখনো পাইপলাইনে আছে। আমরা আমাদের ৮০ ভাগ মানুষকে টিকা দেয়ার চিন্তা করেছি। দ্রুতই তা সম্পন্ন হবে। ভারতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা বিষয়ক এক প্রশ্নের জবাবে ভারতীয় হাইকমিশনার দোরাইস্বামী বলেন, স্থলবন্দর দিয়ে যাতায়াত ও আমাদের ভিসা কার্যক্রম খোলা থাকছে। তবে আগামী ১১ই জানুয়ারি বিদেশ ফেরত ভারতীয়সহ যে কারও দেশটিতে প্রবেশে বাধ্যতামূলক সাতদিন কোয়ারেন্টিন থাকতে হবে। ফলে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কারও ভারত ভ্রমণ না যাওয়াই উত্তম।
পড়া হয়েছে 23 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: সোমবার, 10 জানুয়ারী 2022 08:46

এ বিভাগের সর্বশেষ সংবাদ

ফেসবুক-এ আমরা