07282021বুধ
শিরোনাম:
তাপস হালদার: ৭ জুলাই, ২০১৮ সাল, জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে সম্প্রীতি বাংলাদেশ। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুলের ইসলামের বাণী 'গাহি সাম্যের গান’-কে ধারণ করে বিভিন্ন পেশাজীবিদের সমন্বয়ে যাত্রা শুরু করে 'সম্প্রীতি বাংলাদেশ'। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ধর্ম,বর্ণের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন থাকলেও সম্ভবত সকল ধর্ম,বর্ণ শ্রেণী পেশার সমন্বয়ে এটাই প্রথম সংগঠন। সংগঠনটির আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে ভিডিও বার্তায় বক্তব্য পেশ করেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, উপস্থিত ছিলেন ইমিরেটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, কথা সাহিত্যিক অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ইতিহাসবিদ অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, ইমিরেটাস অধ্যাপক এ কে আজাদ চৌধুরী, সাবেক উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক…
তাপস হালদার: ইতিহাসের অপূর্ব এক মেলবন্ধন। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী, বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শততম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী একই সঙ্গে পালনের সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছে বাঙালি জাতি। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের সাথে জড়িয়ে আছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম। ইতিহাসের এক মহেন্দ্রক্ষনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শততম বছর পূর্ণ করল। অনেক বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল । তৎকালীন কলকাতার এলিট শ্রেনী হিন্দু কিংবা মুসলমান কেউই চায়নি ঢাকায় একটি বিশ্ববিদ্যালয় হোক। কেন চায়নি সেটা ভিন্ন প্রেক্ষাপট। কারা পক্ষে ছিল আর কারা বিরোধীতা করেছে, এসব নিয়ে অনেক বিতর্ক আছে। শতবর্ষের শুভ মুহুর্তে সে বিষয়ে আলোচনায় না যাওয়াই ভালো। তবে বাস্তব সত্য হল সকল বাধাকে অতিক্রম করে ১ জুলাই, ১৯২১…
তাবিথ আউয়াল : বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশী প্রবাসীরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে বৈদেশিক মুদ্রা দেশে পাঠান। প্রাণপ্রকনাকালে প্রবাসীরা বিদেশ থেকে বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রা পাঠানো অব্যাহত রেখেছেন। তাদের অবদান কোনোভাবেই ছোট করে দেখার অবকাশ নেই। কিন্তু করোনাকালে দেশে এসে আমাদের লাখ লাখ প্রবাসী ভাই ও বোনেরা অসহায় হয়ে পড়েছেন। করোনা টিকা প্রাপ্তিতে তাদেরকে অগ্রাধিকার দেওয়া প্রয়োজন। কারণ তারাই আমাদের জাতীয় অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে রেখেছেন। আগামীতে কঠিন প্রতিযোগিতায় বিদেশে শ্রমবাজার টিকিয়ে রাখার স্বার্থে এই প্রবাসীদের সার্বিক সহযোগতিা করা প্রয়োজন। কেননা তারাই দেশের অর্থনীতিকে আরো বেশি চাঙ্গা রাখতে উল্লেখ যোগ্য ভূমিকা রাখছেন। দেশে ফেরা হাজার হাজার প্রবাসীদের সাথে কারোই নির্দয় আচরণ করা উচিত…
তোফায়েল আহমেদ: ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের দুনিয়া কাঁপানো ভাষণ বাঙালি জাতির মহান মুক্তিসনদ! ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠান ইউনেসকো ১৯৭১ সালের ৭ মার্চে প্রদত্ত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণকে (ওয়ার্ল্ড ডকুমেন্টারি হেরিটেজ) বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে, যা সমগ্র জাতির জন্য গৌরবের ও আনন্দের। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ সেদিনের রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু বক্তৃতা দেওয়ার জন্য দাঁড়ালেন, চারদিকে তাকালেন। বাংলার মানুষকে ডাক দিলেন, ‘ভাইয়েরা আমার’। তারপর একটানা ১৯ মিনিট ধরে বলে গেলেন দুনিয়া কাঁপানো মহাকাব্য। বক্তৃতায় তিনি মূলত স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেন। বঙ্গবন্ধুর সামনে ছিল দুটি পথ। এক. স্বাধীনতা ঘোষণা করা। দুই. পাকিস্তান ভাঙার দায়িত্ব না…
রবিবার, 07 মার্চ 2021 09:12

আরো উজ্জ্বল সেই আলো

আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী: পৃথিবীর ইতিহাসে বহু গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ আছে। যেমন—গেটিসবার্গে দেওয়া লিংকনের বক্তৃতা। কিন্তু আমি জানি না পৃথিবীর আর কোনো ভাষণে একটি জাতিকে একই সঙ্গে অহিংস প্রতিরোধ এবং সশস্ত্র মুক্তিসংগ্রামের ডাক দেওয়া হয়েছে। এবং একই সঙ্গে প্রচ্ছন্নভাবে একটি দেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়েছে। ৪০ মিনিটের ছোট্ট ভাষণ। কিন্তু তা একটি মহাকাব্যের গুরুত্বকে অতিক্রম করেছে। সশস্ত্র সংগ্রামের জন্য অপ্রস্তুত একটি জাতিকে মাত্র একটি ভাষণ দ্বারা এমনভাবে উদ্বুদ্ধ করার আর কোনো নজির নেই। সাড়ে সাত কোটি মানুষ একটিমাত্র ডাকে সশস্ত্র স্বাধীনতাসংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল এবং জয়ী হয়েছিল। এই যুদ্ধের সেনাপতি রণাঙ্গনে অনুপস্থিত ছিলেন। তিনি ছিলেন তাঁর দেশ থেকে দেড় হাজার মাইল দূরে পাকিস্তানের…
সাইদুর রহমান প্যাটেল: ‘কেনরে বিধাতা পাষাণ হেন, চারদিকে তার বাঁধন কেন? ভাঙরে হূদয়, ভাঙরে বাঁধন, সাধরে আজিকে প্রাণের সাধন।’ কবিগুরুর কবিতার মতোই দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে আসে। শেখ কামাল, হে প্রিয় বন্ধু আমার, শুভ জন্মদিন তোমায়। শেখ কামালের সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৩২ নম্বর বাড়িতে। ১৯৬৬ সালে আমি তখন গেণ্ডারিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র এবং স্কুল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি। স্কুল পর্যায়ে ছাত্রলীগের কমিটির কথা শুনে অনেকেই হয়তো অবাক হবেন। কিন্তু তখনকার বাস্তবতায় কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো স্কুলের ছাত্ররাও পাকিস্তানি শাসকদের নির্যাতনের কারণে রাজনীতির ময়দানে নামতে বাধ্য হয়েছিল। সম্ভবত, স্কুল পর্যায়ে ছাত্রলীগের প্রথম কমিটি গঠিত হয়েছিল গেণ্ডারিয়া স্কুলেই। ওই…
‘সেক্স’ কথাটি আজকাল সবার কাছে প্রায় জলভাত। কিন্তু আমরা বেশির ভাগই প্রকৃত অর্থে এর সাধ নিতে পারি না। আর এর পেছনে সেকেলের আখড়ে ধরা আমাদের কিছু গোঁড়ামি। তাই জানিয়ে রাখি, সেক্স এর মাধ্যমে দুটো দেহের যে মিলন তা শুধু জৈবিক তৃপ্তির মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। শারীরিক মিলনে বহু আধ্যাত্মিক রহস্য নিহিত আছে সৃষ্টির শুরু থেকে। আমরা কেউই সেই বিষয়টির গভীরে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করিনা। কিন্তু সত্যি অর্থে যে সেই স্বাদ নিতে পারে, তার জীবন হয় অনন্য অসাধারণ। যৌনসংগমের সময় গভীর অন্তরঙ্গতার মাধম্যে আমাদের শরীরে এক ধরনের প্রাকৃতিক এনার্জি তৈরি হয়। এক্ষেত্রে যৌনসঙ্গির নির্বাচন হতে হবে সিলেক্টিভ। কারণ, যৌন সঙ্গীর সাথে অন্তরঙ্গতার…
শুক্রবার, 06 অক্টোবার 2017 13:32

প্রথম সহবাস ?

প্রথম বার সহবাস করবেন? অথচ তার আগে ভয়ে সিঁটিয়ে রয়েছেন, লাগবে না তো? আচ্ছা তাহলে বলি, দুনিয়াতে আপনিই কি প্রথম মহিলা যিনি সহবাস করছেন? তাহলে অযথা ভয় পেয়ে প্রেমের ওই অসাধারণ মুহূর্তগুলোকে ঘেঁটে ঘ করে দেওয়ার কোনও মানে হয় না৷প্রথমবার সহবাস করার আগে কী কী করবেন তা নিয়ে তো প্রচুর গবেষণা করেছেন, কিন্তু কী কী করতে হবে না, তা কখনও ভেবে দেখেছেন কি? উত্তরটা না৷ লেডিজ ফর তাহলে প্রথমেই ভাবুন সেক্সে ব্যথা লাগার ভয়টা নিয়ে৷ কিন্তু মনে রাখবেন ঠিকঠাক সহবাসে ব্যথা লাগার সম্ভাবনা প্রায় নেই-ই৷ পুরোটাই আমাদের মনের ভুল, অতিরিক্ত টেনশন থেকেই আমাদের মনে হয় ওই বুঝি লেগে গেল৷ দেশের…
নিউজ ফ্ল্যাশ ডেস্ক এখনও বহু জায়গাতেই পুরুষশাসিত সমাজে মেয়েদের বাঁধা ধরা গণ্ডির মধ্যে থাকতে হয়। আজকের দিনে সারা বিশ্বেই নারী স্বাধীনতা এক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখনও বহু জায়গাতেই পুরুষশাসিত সমাজে মেয়েদের বাঁধা ধরা গণ্ডির মধ্যে থাকতে হয়। গান, সিনেমা, লেখা বিভিন্ন মাধ্যমকে হাতিয়ার করে এই বিষয়ে প্রচার চালানো হলেও ছবিটা খুব একটা বদলায়নি। তার জ্বলজ্যান্ত উদাহরণ হল সৌদি আরব। সে দেশে মহিলারা এখনও কী কী করতে পারেন না, জানলে অবাক লাগতে পারে। আরবে এখনও মহিলাদের গাড়ি চালানোর অনুমতি নেই। ইসলামিক আইন বা সৌদির ট্র্যাফিক আইনে এমন কিছু বলা না থাকলেও এই নিয়মই কঠোর ভাবে মানা হয় সে দেশে। এমনকী,…
তোফায়েল আহমেদ ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু জন্মেছিলেন এই বাংলার মাটিতে। এই দিনটি যদি বাঙালি জাতির জীবনে না আসত তাহলে আজও আমরা পাকিস্তানের দাসত্বের নিগড়ে আবদ্ধ থাকতাম। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি সংগ্রামের পথ বেছে নিয়েছিলেন। ধীরে ধীরে নিজেকে গড়ে তুলেছেন। আমৃত্যু দেশ ও জাতির জন্য, দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য সংগ্রাম করেছেন। বঙ্গবন্ধুর একান্ত সানি্নধ্যে থেকে দেখেছি তার কৃতজ্ঞতাবোধ, বিনয়, মানুষের প্রতি প্রগাঢ় ভালোবাসা। স্বদেশে কিংবা বিদেশে সমসাময়িক নেতা বা রাষ্ট্রনায়কদের তেজোময় ব্যক্তিত্বের ছটায় সম্মোহিত করা, উদ্দীপ্ত করার এক আশ্চর্য ক্ষমতা ছিল বঙ্গবন্ধুর। সহায়তা করতেন। এর মধ্যে দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও বিরোধী দলের প্রতিপক্ষীয় লোকজনও ছিলেন। কিন্তু শর্ত ছিল, যাদেরকে অর্থ সাহায্য…
> মিত্রকে আর পাশে পাওয়া যাচ্ছে না আগের মতো। প্রথমে এটা ছিল নিছক অস্বস্তি। ক্রমে ক্রমে সেটাই এখন রীতিমতো চাপ। ঠান্ডা যুদ্ধের সময়ে ভারতের ঘনিষ্ঠতম মিত্র ছিল রাশিয়া। গত কয়েক বছর ধরে আমেরিকার সঙ্গে বন্ধুত্ব বাড়িয়ে চলার ফাঁকে দূরত্ব বেড়েছে তাদের সঙ্গে। এখন তো মস্কোর তালিবান-নীতি থেকে শুরু করে চিন-পাক আর্থিক করিডর নিয়ে তাদের ভূমিকা রীতিমতো উদ্বেগে ফেলে দিয়েছে সাউথ ব্লককে। দীর্ঘদিনের নির্ভরযোগ্য বন্ধু দেশটির সঙ্গে সম্পর্কের এই অধোগতি নিয়ে বেজায় চিন্তায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। এতটাই যে, রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কে সমস্যার ক্ষেত্রগুলি খতিয়ে দেখে এ ব্যাপারে সক্রিয় হওয়ার জন্য বিদেশসচিব এস জয়শঙ্করকে নির্দেশ দিয়েছেন মোদী। দরকারে বিদেশ মন্ত্রকের রাশিয়া-বিষয়ক ডেস্ককে…