08122020বুধ
রবিবার, 12 জুলাই 2020 18:42

করোনাভাইরাসের টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট, ডা. সাবরিনা গ্রেফতার

লিখেছেন 
আইটেম রেট করুন
(1 ভোট)
 জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জন ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী আরিফ। জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জন ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী আরিফ।
ডনউজফ্ল্যাশ প্রতিবেদক: করোনাভাইরাস টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট তৈরির অভিযোগে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জন ডা. সাবরিনা চৌধুরীকে করা হয়েছে। আজ রোববার তেজগাঁও থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। গত ২৫ জুন তেজগাঁও থানায় দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন তেজগাও বিভাগের উপ-কমিশনার হারুনুর রশিদ। তেজগাঁও থানা পুলিশ গত ২৩ জুন গুলশানের কনফিডেন্স টাওয়ারে অবস্থিত জোবেদা খাতুন সার্বজনীন স্বাস্থ্য সেবার (জেকেজি হেলথ কেয়ার) অফিস থেকে আরিফুল চৌধুরী, হুমায়ন কবীর, হুমায়নের স্ত্রী তানজিনা পাটোয়ারিসহ ৬ জন কে গ্রেফতার করে। পুলিশের ওই অভিযান চলাকালে ডা. সাবরিনা সুলতানা পালিয়ে যান। ওই ৬ জনকে তেজগাঁও থানায় নিয়ে আসা হয়। ওই দিন রাতেই আরিফুলের ক্যাডার বাহিনী আসামীদের ছিনিয়ে নিতে তেজগাঁও থানায় হামলা চালায়। থানার কলাবশিবল গেট ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। ওই ঘটনায় পুলিশ থানার ভিতর থেকে ১৮ জনকে গ্রেফতার করে। পরদিন আদালতে হুমায়ন কবীর ও তার স্ত্রী তানজিনা এ ঘটনায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। আরিফুলসহ ৪ জনকে পুলিশ ২ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদকারী এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, আরিফুল ও তার স্ত্রী ডা. সাবরিনা মাদকাসক্ত। বিশেষ করে তারা ইয়াবা সেবনকারী। গত মে মাসে সরকারি তিতুমীর কলেজের করোনা বুথে রাতের বেলায় তারা ইয়াবার আসর বসিয়েছিল। ছাত্রলীগ বিষয়টির প্রতিবাদ করলে ডা. সাবরিনার ক্যাডার বাহিনী ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের বেদম মারপিট করে। তারা বিভিন্ন বুথে রাতের বেলায় মদ ও ইয়াবার আসর বসাতো। এসবের খবর পেয়েই তেজগাঁও থানা পুলিশ গুলশানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। মুলত ডা. সাবরিনা এই করোনা টেস্ট রিপোর্ট ভুয়া দিতেন বলে জানিয়েছেন তার স্বামী আরিফুল চৌধুরী। গুলশানের জোবেদা খাতুন সার্বজনীন হেলথ কেয়ার অফিস থেকে পুলিশ করোনার ১৫ হাজার ভুয়া টেস্ট রিপোর্ট পেয়েছে।
পড়া হয়েছে 26 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: রবিবার, 12 জুলাই 2020 18:59

এ বিভাগের সর্বশেষ সংবাদ

ফেসবুক-এ আমরা