বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

স্পেনকে হারিয়ে চতুর্থবারের মত শেষ ষোলোতে জাপান

গ্রুপ-ই’র শেষ রাউন্ডের ম্যাচে স্পেনকে ২-১ গোলে হারিয়ে কাতার বিশ^কাপের শেষ ষোলোতে উঠলো জাপান। এই নিয়ে চতুর্থবারের মত বিশ^কাপের নক-আউট পর্বে জাপান। তবে এ ম্যাচ হারলেও নক আউট পর্বে গেছে স্পেনও।

জাপানের কাছে হারলেও গোল বিবেচনায় এগিয়ে থাকার সুবাদে গ্রুপ রানার্স-আপ হয়ে পরের রাউন্ডে গেছে স্পেন। গ্রুপের অন্য ম্যাচে কোস্টা রিকাকে ৪-২ ব্যবধানে হারিয়েও গোল ব্যবধানে পিছিয়ে থাকায় টানা দ্বিতীয়বারের মত গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিলো জার্মানি।
৩ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলো জাপান। সমানসংখ্যক ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ রানার্স-আপ হলো স্পেন। স্পেনের সমান ৪ পয়েন্ট জার্মানিরও। কিন্তু স্পেনের গোল +৬। জার্মানির +১ গোল। ৩ ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শেষ দল কোস্টা রিকা।

গ্রুপে দুই রাউন্ডের খেলা শেষে স্পেন ৪ ও জাপানের সংগ্রহ ছিল ৩ পয়েন্ট। দু’দলের সামনেই শেষ ষোলোর পথ খোলা ছিলো। জয় বা ড্র’তে পরের রাউন্ডে পা রাখবে স্পেন। জয় পেলেই শেষ ষোলো নিশ্চিত হবে জাপানের। ড্র বা হারে গ্রুপের অন্য ম্যাচ কোস্টা রিকা ও জার্মানির ফলাফলের দিকে চেয়ে থাকতে হবে জাপানকে।

জাপানের বিপক্ষে ফেভারিট হিসেবেই আজ দোহার খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে খেলতে নামে স্পেন। মাঠেই সেই প্রমান মিলে। বল দখলে রেখে ১১ মিনিটে প্রথম গোল পেয়ে যায় স্পেন। ডিফেন্ডার সিজার আজপিলিকুয়েটার ক্রস থেকে হেডে গোল করেন স্ট্রাইকার আলভারো মোরাতা। স্পেনের জার্সি গায়ে ৬০ ম্যাচে ৩০তম গোল করলেন তিনি।

লিড পেয়ে আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠে স্পেন। আক্রমনে কোনঠাসা করে ফেলে জাপানকে। ২৩ মিনিটে বল নিয়ে জাপানের গোলমুখে শট নেন মোরাতা। সেই আটকে দেন জাপানের ডিফেন্ডার মায়া ইউশিদা।

৩৬ মিনিটে আক্রমনের সুযোগ পায় জাপান। মিডফিল্ডার জুনিয়া ইতোর পাসে বল পেয়ে বক্সের ভেতর থেকে স্পেনের গোলমুখে শট নেন মিডফিল্ডার ডাইচি কামাডা। কিন্তু সেটি গোলবার খুঁজে পায়নি।

এরপর ৪২ মিনিটে প্রথমার্ধে শেষবারের মত আক্রমনে যায় স্পেন। মিডফিল্ডার সার্জিও বাসকুয়েটসের পাস থেকে পেয়ে একজনকে কাটিয়ে জাপানের বক্সে ঢুকে পড়েন স্ট্রাইকার ডানি ওলমো। জাপানের গোলমুখে শটও নিয়েছিলেন তিনি। সেটি জাপানের ডিফেন্ডারের পা লেগে প্রতিহত হয়। মোরাতার একমাত্র গোল প্রথমার্ধে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় স্পেন।
প্রথমার্ধে ৮৩ শতাংশ বল নিজেদের আয়ত্বে রাখতে পারলেও পাঁচটির মধ্যে মাত্র তিনটি শট গোল মুখে নিতে পারে স্পেন।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই যেন অন্য এক জাপানকে দেখা যায়। মাত্র ৩ মিনিটের ব্যবধানে দু’টি গোল করে লীড নেয় এশিয়ার দলটি।

৪৮ মিনিটে স্পেনের ডিফেন্ডার অ্যালেক্স বালডের সাথে বলের লড়াইয়ে হেড করেন মিডফিল্ডার জুনিয়া ইতো। বক্সের বাইরে বল পান মিডফিল্ডার রিটসু ডোয়ান। বল নিয়ে তিন-চার কদম এগিয়ে জায়গা বানিয়ে বাঁ-পায়ে জোড়ালো শট নেন ডোয়ান। তার জোড়ালো শট আটকাতে বাঁ-দিকে ঝাপিয়ে পড়েও রুখতে পারেননি স্পেনের গোলরক্ষক উনাই সাইমন। তার হাতে ঘেষে বল জালে প্রবেশ করে। ম্যাচে সমতা পায় জাপান।

এই গোলের রেশ কাটতে না কাটতে ৩ মিনিট পর আবারও আনন্দে মেতে উঠে জাপান। মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে ডান-প্রান্ত দিয়ে স্পেনের বক্সের ভেতর প্রবেশ করে বাঁ-দিকে বল বাড়ান মিডফিল্ডার কাউরু মিতোমা। বল চলে যাচ্ছিলো মাঠের বাইরে। সেখানে ছুটে গিয়ে দারুনভাবে শট নিয়ে গোল আদায় করে জাপানকে এগিয়ে মিডফিল্ডার আরো টানাকা।

ম্যাচের বাকী সময়ে আক্রমন পাল্টা আক্রমন করেছে স্পেন ও জাপান। গোলের ভালো সুযোগ তৈরি করে তা কাজে লাগাতে পারেনি কোন দলই। স্পেনের ওলমো ও মার্কো আসেনসিয়ো সুযোগ নষ্ট করেন। জাপানের কো ইতাকুরাও গোলের সুযোগ হেলায় হারান। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জয় ও পরের রাউন্ডে উঠার আনন্দ নিয়ে মাঠে ছাড়ে জাপান। টানা দ্বিতীয়বারের মত নক-আউপ পর্বে উঠলো জাপান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ