বুধবার, ১৯শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শেখ হাসিনার আশ্রয়ণ প্রকল্প বিশ্বে অনন্য : নরওয়েজিয়ান শিক্ষাবিদ ড. পিয়ারসন

বিশিষ্ট নরওয়েজিয়ান শিক্ষাবিদ ও গবেষক ড. অ্যাটলি পিয়ারসন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্রয়ণ প্রকল্প বিশ্বে অনন্য, কারণ, সরকারি জমিতে স্থায়ীভাবে বাড়ি নির্মাণ করে ঠিকানাহীন মানুষকে মালিকানা দেওয়ার নজির আর কোথাও নেই।

ড. অ্যাটলি এক নিবন্ধে লিখেছেন, “আজকে, আশ্রয়ণ শুধু বাংলাদেশেই নয় সারা বিশ্বে একটি অনন্য প্রকল্প। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পিছিয়ে পড়া মানুষের সাহায্যার্থে নানা উদ্যোগ থাকলেও সরকারি জমিতে স্থায়ী বাড়ি নির্মাণ করে ঠিকানাহীন মানুষকে মালিকানা এবং সরকারি খরচে বিদ্যুৎ ও স্যানিটেশন সুবিধাসহ বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়ার আর কোন নজির নেই।’’

নেপালের অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘রাতোপতি’তে গতকাল ৮ আগস্ট ‘উন্নয়নশীল বিশ্বের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের দৃষ্টান্ত হিসাবে বাংলাদেশের আশ্রয়ণ প্রকল্প” শিরোনামে দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক গবেষণা, কূটনীতি এবং ভূ-রাজনীতিতে অভিজ্ঞ অ্যাটলি পিয়ারসনের নিবন্ধটি প্রকাশিত হয়।

নিবন্ধ অনুসারে, শেখ হাসিনা মডেল ফর ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট, যা দারিদ্র্য ও ক্ষুধামুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে অগ্রগতির এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছে, বর্তমানে আশ্রয়ণ প্রকল্প হিসাবে যথাযথভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ‘কেউ পিছিয়ে থাকবে না’ এই নীতির ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই উদ্যোগের মাধ্যমে গৃহহীন জনগোষ্ঠীর জন্য আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের এক নতুন স্তর উদ্বোধন করেন।

তবে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে আরও ২২ হাজার ১০১টি পরিবার নতুন ঘর পাবে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের চতুর্থ পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপে এসব বাড়ি দেওয়া হচ্ছে।

বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে এসব আংশিক সুসজ্জিত বাড়ি ও ২০০ একর বিনামূল্যে জমি দেওয়া হবে। একই সঙ্গে দেশের ১২৩টি উপজেলাকে সম্পূর্ণ ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করবেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশের একজন নাগরিকও গৃহহীন বা ভূমিহীন থাকবে না’ এই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ২০২০ সালের মে মাসে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় পরিচালিত আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পটি শুরু হয়। ২০২১ সালের জানুয়ারিতে এই প্রকল্পের প্রথম ধাপে ৬৩ হাজার ৯টি একক পরিবারের বাড়ি হস্তান্তর করেন প্রধানমন্ত্রী। এটি চলার সময়, ৭৪৩ ব্যারাকে ৩ হাজার ৭১৫ পরিবারকে পুনর্বাসনের জন্য রাখা হয়েছিল। একই বছরের জুন মাসে প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় পর্যায়ের ৫৩ হাজার ৩৩০টি বাড়ি হস্তান্তর করেন। তৃতীয় পর্যায়ে ৬৫ হাজার ৬৭৪টি বাড়ি নির্মাণ করা হয়। চলতি বছরের মার্চ মাসে চতুর্থ ধাপের ৩৯ হাজার ৩৬৫টি বাড়ি হস্তান্তর করা হয়।

এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে চারটি ধাপে ২৩৮৮৫১ পরিবার বাড়ি ও জমি পেয়েছে। ১১৯৪০৩৫ পুনর্বাসন হয়েছে, প্রতিটি পরিবারে গড়ে পাঁচজন সদস্য রযেছে। প্রাপকের সংখ্যা এবং পুনর্বাসনের ধরণ অনুসারে, এটি বিশ্বের বৃহত্তম সরকারি পুনর্বাসন কর্মসূচি।

আজ সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও আশ্রায়ন একটি একক প্রচেষ্টা। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে সুবিধাবঞ্চিতদের সহায়তার জন্য অসংখ্য উদ্যোগ নেয়া হলেও ঠিকানাবিহীনদের নামে সরকারি জমিতে মালিকানা হস্তন্তর করে বিদ্যুৎ ও স্যানিটারি সুবিধাসম্বলিত বাড়ি নির্মাণের জন্য অর্থ প্রদান করে স্থায়ীভাবে এ ধরনের বাড়ি নির্মাণের নজির নেই। এই উদ্যোগে গৃহহীন বা ভূমিহীন পরিবারগুলোকে ২ শতাংশ খাস (সরকারি মালিকানাধীন জমি) জমি বন্দোবস্তোসহ যৌথ নামে বিদ্যুৎসহ দুই কক্ষবিশিষ্ট আধা-পাকা একক পরিবারের একটি বাড়ি গ্রহণের সুযোগ দেওয়া হয়।
উদ্যোগটি স্বামী এবং স্ত্রী উভয়কেই জমির মালিকানার গ্যারান্টি দেয়, যা কেবল একজন পুরুষ এবং তার পরিবারকে মর্যাদার সাথে বেঁচে থাকার সুযোগই দেয় না বরং নারীর ক্ষমতায়নের একটি বিরল উদাহরণও সৃষ্টি করে। গবেষকরা এমন একটি একক কেস নিয়ে আসতে পারেন যা অতুলনীয়।

এই প্রচারাভিযানের আকার এবং পরিধি নির্দিষ্ট ডেটা দেখে বোঝা যেতে পারে। ১৯৯৭ সালে শুরু হওয়া আশ্রয়ে উদ্যোগএবং যেখানে ২৭,৭৮,০৮৫ জনকে স্থানান্তরিত করা হয়েছে, গবেষণায় দেখা গেছে যে ৫,৫৫,৬১৭ টি পরিবারকে আশ্রয়ণ দেওয়া হয়েছে। আশ্রয়ণ ছাড়াও বীর নিবাস, সংখ্যালঘু পুনর্বাসন, ক্লাস্টার ভিলেজ, দুর্যোগ সহনশীল বাড়ি এবং হাউজিং ফান্ড হোমের মতো কর্মসূচিগুলো কার্যত অভিন্ন। জমির মালিকানা অর্জনের পাশাপাশি, এই কর্মসূচির ফলে ৪,১৪,৮০০ ব্যক্তি বাড়ির মালিকও হয়েছেন। ২৮,০০০ একরের বেশি জমিতে শুধুমাত্র বসতবাড়ি রাখার অনুমতি রয়েছে। ফলে, সারাদেশের ২১ টি জেলার সকল উপজেলাসহ ৩৩৪ টি উপজেলা বর্তমানে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৭ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে গৃহহীন প্রান্তিক ও অতিদরিদ্র মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে আশ্রয়ণ প্রকল্পটি অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নে “শেখ হাসিনা মডেল” হিসাবে বিবেচিত হয়। এ পর্যন্ত ৩৫ লাখেরও বেশি মানুষ এ ধরনের বাড়ি পেয়েছন। দেশের কয়েক লাখ গৃহহীন মানুষের পুনর্বাসনের লক্ষে ১৯৯৬ সালে আশ্রয়ণ পরিকল্পনার শুরু।

আমরা যদি তুলনামূলক প্রকল্পগুলোর দিকে তাকাই তবে লাল-সবুজ রঙের ঘরগুলো আমাদের একটি নতুন বাড়ির দিকে নিয়ে যাবে। আমরা যদি পরিসংখ্যান না বাড়াই, তাহলে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য দেশের ৩৩৪টি বিনামূল্যে উপজেলা আশ্রয়কেন্দ্র।

হোম ডিজাইনের এই পরিসীমাটি দেখায় যে কর্মসূচিটি কেবল সস্তা নয়; বরং, উপকারভোগী জনগোষ্ঠী যাতে তাদের বিভিন্ন স্থানে প্রকৃতপক্ষে সর্বাধিক ব্যবহারিক সুবিধা পায় তা নিশ্চিত করার জন্য এটি অত্যন্ত যতœসহকারে পরিচালনা করা হয়েছে।

আশ্রয়ণ জাতির আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের সূচনা করেছে। একটি প্লটের উপর একটি বাড়ি বা একটি পরিবার কেবল একটি আবাসিক সুবিধা নয়। সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের সম্পত্তি, আশ্রয় এবং অনুরূপ কর্মসূচির মালিক হওয়ার সুযোগ দেওয়ার মাধ্যমে পিছিয়ে পড়া গ্রামগুলো শক্তিশালী হতে এবং নতুন সামাজিক মর্যাদা অর্জনে সহায়তা করেছে, যাতে তারা সমাজে পুনরায় একীভূত হতে পারে। এই প্রচেষ্টা ক্ষুধা ও দারিদ্র্য দূরীকরণ, স্থায়ী আবাসন, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা এবং স্যানিটেশন প্রদান, সামাজিক ন্যায্যতা নিশ্চিত করা এবং জলবায়ুু শরণার্থীদের পুনর্বাসনের মাধ্যমে গ্রামীণ অর্থনীতিকে উল্লেখযোগ্যভাবে এবং দৃশ্যমানভাবে পরিবর্তন করেছে।
জাতিকে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বতন্ত্র ও অনন্য ধারণা তত্ত্ব ও ভাষার ঊর্ধ্বে। এই দর্শনের ব্যবহারিক দিকটিও বেশ স্পষ্ট। ‘শেখ হাসিনা মডেল অব ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট’ আশ্রয়কেন্দ্র এবং এ ধরনের অন্যান্য উদ্যোগের আকারে প্রকাশ পায়।

এই মডেলের বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে রয়েছে দরিদ্রতম মানুষের উপার্জন সম্ভাবনা বৃদ্ধি, তাদের সম্মানজনক জীবনযাত্রা এবং সামাজিক অবস্থান প্রতিষ্ঠা করা, জমি এবং বাড়ির মালিকানার জন্য মহিলাদের ক্ষমতায়ন, তাদের দক্ষতা এবং দক্ষতা বিকাশ, পরিবেশ রক্ষা এবং গ্রামে থেকে শহর সুবিধা নিশ্চিত করা।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের নিরাপত্তা বোধ ৯৮ দশমিক ৮৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, তাদের সামাজিক মর্যাদা বেড়েছে ৯৮ দশমিক ৫ শতাংশ, তাদের জীবনযাত্রার মান বেড়েছে ৯৫ দশমিক ২ শতাংশ, নতুন আসবাবপত্র কেনার সক্ষমতা বেড়েছে ৭০ দশমিক ২২ শতাংশ, তাদের ইতিবাচক আচরণ বেড়েছে ৬০ দশমিক ৭৮ শতাংশ, সামাজিক সম্প্রীতি বেড়েছে ৬০ দশমিক ২১ শতাংশ এবং তাদের ইলেকট্রনিক ডিভাইস কেনার সক্ষমতা বেড়েছে ৫৬ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

শেখ হাসিনার অন্যান্য প্রচেষ্টার পাশাপাশি আশ্রয়ণ প্রকল্পটি সর্বকালের সর্ববৃহৎ পুনর্বাসন প্রকল্প হিসেবে আন্তর্জাতিক নীতিনির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। মানব বসতি স্থাপনের জন্য জাতিসংঘের হ্যাবিট্যাট প্রোগ্রামের অধীনে এই ধারণাটি অনুসন্ধান করা হচ্ছে। ২০২২ সালের ২১ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের ৭৭তম অধিবেশনে ‘শরণার্থী: অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের জন্য শেখ হাসিনা মডেল’ শীর্ষক বিতর্কে অংশ নেন জাতিসংঘসহ বিভিন্ন দেশের নীতিনির্ধারকরা।

তবে, আজ সারা বিশ্ব দেখতে পাচ্ছেন কিভাবে বাংলাদেশের দরিদ্র, অসম্মানজনক ও অবহেলিত নারীরা জমির অধিকার অর্জন করেছে এবং তাদের স্বামী ও সন্তানদের পাশাপাশি তাদের নিজস্ব ‘বাড়ি’ হচ্ছে। এই প্রচেষ্টার মাধ্যমে, তারা সম্মান, মর্যাদা, সাহস এবং জীবনের যুদ্ধে জয়ী হওয়ার আত্মবিশ্বাস অর্জন করছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ