বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বিশ্ব এইডস দিবস আজ

Auric_Logo

বিশ্ব এইডস দিবস আজ। মারণব্যাধি এইডসকে রুখতে ও বিশ্ব সচেতনতা গড়ে তুলতে প্রতি বছর ১ ডিসেম্বর দেশে দেশে পালিত দিবসটি পালিত হচ্ছে।

প্রতিবারের মতো এবারও বাংলাদেশে যথাযথ উদ্যোগের মধ্যদিয়ে পালিত হচ্ছে দিবসটি। এ বছর এর প্রতিপাদ্য: ‘কমিউনিটির আমন্ত্রণ, এইডস হবে নিয়ন্ত্রণ’। দিবসটি উপলক্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় হাতে নিয়েছে নানা কর্মসূচি।

১৯৮৮ সাল থেকে এইডসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে সারা বিশ্বে আজকের দিনে দিবসটি পালন করা হয়ে আসছে। বাংলাদেশে প্রথম এইডস রোগী শনাক্ত হয় ১৯৮৯ সালে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য মতে, ২০২২ সালের নভেম্বর থেকে ২০২৩ সালের অক্টোবর পর্যন্ত এইচআইভি সংক্রমিত এক হাজার ১০০ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এইডস/এসটিডি প্রোগ্রামের তথ্য অনুযায়ী, দেশে আনুমানিক সাড়ে ১৪ হাজার রোগী রয়েছেন। এসব রোগীর ৩৭ শতাংশ এখনও শনাক্তের বাইরে। আর চিকিৎসার বাইরে রয়েছে ২৩ শতাংশ রোগী।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, রোগী শনাক্তের দিক থেকে ঢাকার পরে রয়েছে রাজশাহী বিভাগ। এর পরে চট্টগ্রাম বিভাগ। তবে সম্প্রতি সিরাজগঞ্জে অস্বাভাবিক হারে এইডস রোগী শনাক্ত হচ্ছে। গত এক বছরে সেখানে ১৪৪ জন এইডস রোগী মিলেছে। যাদের ৯৮ শতাংশই সুঁই-সিরিঞ্জের মাদকসেবী।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশে ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা ২০২৫ সাল। এ সময়ের মধ্যে রোগটির প্রতিরোধ সম্পর্কে ৯৫ ভাগ মানুষকে সচেতন করতে হবে। শনাক্ত হওয়া ৯৫ শতাংশ রোগীকে এআরটি সেন্টারের মাধ্যমে চিকিৎসার আওতায় আনতে হবে। ৯৫ ভাগ এআরটি সেবাগ্রহীতা রোগীর দেহে ভাইরাল লোড ৫০ কপি প্রতি মিলিলিটারের নিচে আনতে হবে। এ তিনটি অর্জন সম্ভব হলে রোগটির নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

দেশে বর্তমানে অনুমিত রোগীর সংখ্যা ১৪ হাজার ৬০০। তবে ১৯৮৯ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত এইডস শনাক্ত হওয়া চিহ্নিত রোগীর সংখ্যা ৯ হাজার ৭০৮ জন। এ সময়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৮২০ জন। বর্তমানে রোগটি প্রাদুর্ভাবের হার ০.০১ শতাংশের কম।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় এইডস সম্পর্কিত বিশ্ব কর্মসূচির দুজন জনতথ্য কর্মকর্তা জেমস ডব্লু বুন এবং টমাস নেটটার দ্বারা ১৯৮৭ সালের আগস্টে প্রথম বিশ্ব এইডস দিবসের পরিকল্পনা করা হয়েছিল। এইডস সম্পর্কিত বিশ্ব কর্মসূচির (বর্তমানে আনএইডস নামে পরিচিত) পরিচালক ড. জোনাথন মানের কাছে বুন এবং নেটটার তাদের ধারণাটির কথা জানিয়েছিলেন। ড. মান এ ধারণাটি পছন্দ করে এটির অনুমোদন করেন এবং ১৯৮৮ সালের ১ ডিসেম্বর বিশ্ব এইডস দিবসটি প্রথম পালন করা উচিত এমন পরামর্শের সঙ্গে একমত হন।

সান ফ্রান্সিসকোর প্রাক্তন টেলিভিশন সম্প্রচার সাংবাদিক বুন ১ ডিসেম্বর তারিখটির সুপারিশ করেছিলেন। তার বিশ্বাস ছিল, মার্কিন নির্বাচনের যথেষ্ট পরে কিন্তু বড়দিনের ছুটির আগে, পশ্চিমা সংবাদমাধ্যমগুলোর দ্বারা বিশ্ব এইডস দিবসের প্রচার সর্বাধিক হবে।

প্রথম দুই বছরে, বিশ্ব এইডস দিবসের প্রতিপাদ্য শিশু এবং তরুণদের লক্ষ্য করে তৈরি হয়েছিল। এ প্রতিপাদ্যটি বেছে নেয়ার সময় কিছু ঘটনা উপেক্ষা করার কারণে এর সমালোচনা করে বলা হয়েছিল যেসব বয়সের লোক এইচআইভিতে আক্রান্ত হতে পারে, প্রতিপাদ্যটি রোগটিকে ঘিরে থাকা কিছু কালিমা মোচন করতে এবং পারিবারিক রোগ হিসেবে সমস্যাটির স্বীকৃতি বাড়াতে সহায়তা করেছিল।

১৯৯৬ সালে এইচআইভি/জাতিসংঘের এইডস সম্পর্কিত কর্মসূচি (ইউএনএআইডিএস) চালু হয়েছিল এবং এটি বিশ্ব এইডস দিবসের পরিকল্পনা ও প্রচারের দায়িত্ব অধিগ্রহণ করে। শুধু একটি দিনে মনোযোগ না দিয়ে আনএইডস ১৯৯৭ সালে বছরব্যাপী যোগাযোগ, প্রতিরোধ ও শিক্ষার ওপর গুরুত্ব দেয়ার জন্য বিশ্ব এইডস অভিযান তৈরি করেছিল।

২০০৪ সালে বিশ্ব এইডস প্রচার, একটি স্বাধীন সংগঠনে পরিণত হয়েছিল। প্রতি বছর, পোপ জন পল দ্বিতীয় এবং দ্বাদশ বেনেডিক্ট বিশ্ব এইডস দিবসে রোগী এবং চিকিৎসকদের জন্য একটি শুভেচ্ছা বার্তা প্রকাশ করেন।

২০১৬ সালে এইচআইভি এবং এইডস সম্পর্কিত এনজিওগুলো (প্যানেজিয়া গ্লোবাল এইডস এবং দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য এইডস এবং অধিকার জোটসহ) বিশ্ব এইডস দিবসটিকে বিশ্ব এইচআইভি দিবসের নামে করার জন্য একটি প্রচার কার্য শুরু করেছিল। তারা দাবি করে যে, এ পরিবর্তন সামাজিক ন্যায়বিচারের বিষয়গুলো এবং প্রি এক্সপোজার প্রফিল্যাক্সিস (ব্যাধির আক্রমণ হবার আগে চিকিৎসা)-এর মতো চিকিৎসার অগ্রগতির ওপর জোর দেবে।

২০০৭ সালে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, হোয়াইট হাউস ভবনের উত্তরের বারান্দায়, ২৮ ফুট (৮.৫ মি) লম্বা এইডস ফিতা সাজিয়ে, বিশ্ব এইডস দিবসকে চিহ্নিত করা শুরু করে। সেই সময়, রাষ্ট্রপতি জর্জ ডব্লিউ বুশ প্রশাসনে দায়িত্ব পালনকারী হোয়াইট হাউসের সহযোগী স্টিভেন এম লেভাইন, বিশ্ব এইডস মহামারি মোকাবিলা করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুত পিইপিএফএআর প্রোগ্রামের প্রতীকের মাধ্যমে প্রদর্শনের প্রস্তাব করেছিলেন। হোয়াইট হাউস প্রদর্শন, যেটি এখন পরপর চারজন রাষ্ট্রপতির প্রশাসনেই একটি বার্ষিক ঐতিহ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে, দ্রুত সম্মতি জারি করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ