সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

নেতানিয়াহুর সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে ইসরায়েলিরা

হাজার হাজার ইসরায়েলি শনিবার প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর নতুন সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে। নেতানিয়াহুকে ইসরায়েলের ইতিহাসে সবচেয়ে ডানপন্থী বলে মনে করা হয়। এএফপি’র এক সংবাদদাতা এ কথা জানান।

বিক্ষোভকারীরা উপকূলীয় তেল আবিব শহরে ‘গণতন্ত্র বিপদে’ এবং ‘ফ্যাসিবাদ ও বর্ণবাদের বিরুদ্ধে একসাথে’ শ্লোগানসহ ফেস্টুন প্রদর্শন করে।
কেউ কেউ ইসরায়েলি এবং রংধনু পতাকা নাড়ে যখন অন্যরা ‘অপরাধ মন্ত্রী’ লেখা একটি বড় ব্যানার ধরেছিল, গত বছরগুলিতে নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে নিয়মিত বিক্ষোভের সময় ইসরায়েলিরা ব্যাপকভাবে এই শ্লোগান ব্যবহার করে।

গত ১ নভেম্বরের নির্বাচনে জয়লাভের পর নেতানিয়াহু চরম-ডান এবং অতি-অর্থোডক্স ইহুদি দলগুলির সাথে একটি জোটের প্রধান হয়ে গত মাসের শেষের দিকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন, যাদের কিছু কর্মকর্তা এখন মূল মন্ত্রণালয়ের প্রধান।

এর মধ্যে এমন একজন রাজনীতিবিদ রয়েছেন, যিনি গত বছরের শেষের দিকে কর ফাঁকি দেওয়ার কথা স্বীকার করেছিলেন এবং যার মধ্যে অতি-ডানপন্থী ঘেষা একজন রয়েছেন, যিনি একবার তার বাড়িতে এমন একজন ব্যক্তির প্রতিকৃতি রেখেছিলেন যিনি বহু ফিলিস্তিনি আলেমের হত্যার জন্য দায়ী।

৭৩ বছর বয়সী নেতানিয়াহু, যিনি আদালতে নিজের দুর্নীতির অভিযোগের বিরুদ্ধে লড়ছেন, ইসরায়েলের ইতিহাসে তিনি সবচেয়ে বেশি সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন, ১৯৯৬ থেকে ১৯৯৯ এবং ২০০৯ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত দেশটির নেতৃত্ব দিয়েছেন।

প্রতিবাদকারীদের মধ্যে একজন আইনজীবী বলেছেন, ‘আমার দাদা-দাদি ইসরাইলে এসেছিলেন এখানে আশ্চর্যজনক কিছু তৈরি করতে, আমরা অনুভব করতে চাই না যে আমাদের গণতন্ত্র বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে, সুপ্রিম কোর্ট ধ্বংস হয়ে যাবে।’

তেল আবিবের প্রযুক্তি খাতের একজন কর্মী ওমর বলেছেন, ‘চরমপন্থীরা তাদের বাহিনী মোতায়েন করতে শুরু করেছে এবং তারা সংখ্যাগরিষ্ঠ নয়।’

নতুন সরকার অধিকৃত পশ্চিম তীরে বসতি সম্প্রসারণের নীতি অনুসরণ করার এবং এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের সদস্য ও সমর্থকদের উদ্বিগ্ন করে এমন সামাজিক সংস্কার করার অভিপ্রায় ঘোষণা করেছে।

ইসরায়েলের নতুন বিচারমন্ত্রী এই সপ্তাহে একটি সংস্কার কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন, যার মধ্যে একটি ‘অবমানানকর ধারা’ রয়েছে যা সংসদকে সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তগুলো অগ্রাহ্য করার অনুমতি দেয়।

বিরোধী নেতা ইয়ার ল্যাপিড এই সংস্কারের নিন্দা করে টুইটারে বলেছেন, এটি ‘ইসরায়েল রাষ্ট্রের পুরো আইনি ব্যবস্থাকে বিপন্ন করে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ