বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ৬ জেলায় ১৮ হাজার হেক্টরের বেশি জমিতে সরিষার আবাদ

চলতি ২০২২-২০২৩ রবি মৌসুমে যশোর কৃষি জোনের আওতায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ৬ জেলায় ১৮ হাজার ৮৩৫ হেক্টর বেশি জমিতে সরিষার আবাদ করা হয়েছে।

এ কৃষি জোনের আওতায় যশোর,ঝিনাইদহ, মাগুরা, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর জেলায় রেকর্ড পরিমাণ জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে। এ ৬ জেলায় ৫৪ হাজার ৯০ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও চাষ হয়েছে ৭২ হাজার ৯২৫ হেক্টর জমিতে।

এ অঞ্চলের গ্রামীণ মাঠঘাট এখন সরিষার হলুদ ফুলে ভরে উঠেছে। হলুদ ফুলের সমারোহ যেন পথচারীর নজর কাড়ছে।অপরুপ এ সৌন্দর্য্যে যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে প্রকৃতি।সরিষার ফুল থেকে মৌমাছি গুণগুণ শব্দে মধু সংগ্রহে ব্যস্ত। আবহাওয়া ভালো থাকায় বাম্পার ফলনের আশা করছে কৃষি বিভাগ।

যশোর আঞ্চলিক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, যশোর জেলায় এবার ১৩হাজার হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও দ্বিগুণ বেড়ে ২৪ হাজার ৮৪৮ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে।
ঝিনাইদহ জেলায় ৯ হাজার ৭৭৭ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও চাষ হয়েছে ১১হাজার ১১২ হেক্টর জমিতে।

মাগুরা জেলায় ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও চাষ হয়েছে ১৬হাজার ৩৫৫ হেক্টর জমিতে।

কুষ্টিয়া জেলায় ৯ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও চাষ হয়েছে ১১ হাজার ৬৪৫ হেক্টর জমিতে।

চুয়াডাঙ্গা জেলায় ২ হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও চাষ হয়েছে ৩হাজার ১৩৫ হেক্টর জমিতে।

মেহেরপুর জেলায় ৪ হাজার ৩৭০ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও ৫ হাজার ৮৩০ হেক্টর জমিতে জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে।

যশোর আঞ্চলিক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর অতিরিক্ত পরিচালক মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, এ অঞ্চলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে সরিষার আবাদ কৃষির জন্য খুবই ইতিবাচক। জমির উর্বরতা ধরে রাখার জন্য শস্য নিবিড়তায় কৃষককে সরিষা আবাদে উৎসাহিত করা হচ্ছে।
ভোজ্যতেলের সংকট কাটিয়ে উঠতে ভূমিকা রাখবে এ অঞ্চলের জেলায় চাষাবাদ করা উচ্চফলনশীল টরি-৭,১৪ ও বারি-১৪,১৭ ও ১৮ জাতের সরিষা।

সরিষা চাষে সফলতার জন্য কৃষক পর্যায়ে প্রশিক্ষণসহ উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার ও উন্নতমানের বীজ সরবরাহ নিশ্চিত করা হয়েছে।

সরকারের নির্দেশনায় বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকসহ অন্যান্য ব্যাংক কৃষকদের স্বল্প সুদে সহজ শর্তে ঋণ প্রদান করেছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় সরিষার ফলন এবারও বাম্পার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আশা প্রকাশ করেছেন কৃষি কর্মকর্তা ও কৃষকরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ