বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ঢাকায় সমাপ্ত হলো দক্ষিন এশিয় লিভার কনফারেন্স

ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনির্মিত সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালের দৃষ্টিনন্দন অডিটোরিয়ামে পর্দা নামলো দক্ষিণ এশিয়ার লিভার বিশেষজ্ঞদের প্রতিনিধিত্বশীল পেশাজীবি সংগঠন সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার (সাসেল)-এর নবম বার্ষিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ৩ আগষ্ট এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

। উল্লেখ্য বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল, শ্রীলংকা, মায়ানমার, পাকিস্তান ও আফগানিস্থানের লিভার বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত সাসেলের যাত্রা শুরুটাও হয়েছিল ঢাকাতেই ২০১৩ সালে।

এ সম্মেলন উপলক্ষে বানী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি জনাব মোঃ সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি।

সম্মেলনের সাইন্টিফিক কমিটির চেয়ারম্যান, জাপান প্রবাসী প্রথিতযশা চিকিৎসা বিজ্ঞানী ও ন্যাসভ্যাকের অন্যতম আবিষ্কারক ডা. শেখ মোহাম্মদ ফজলে আকবরের সভাপতিত্বে সাসেল সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আসন অলংকৃত করেন সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার এর সভাপতি ভারতের অধ্যাপক ডা. শিব রাম প্রসাদ সিং। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার ইউমেন ইন হেপাটোলজি ফেরামের সাধারন সম্পাদক ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিভার বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. রোকসানা বেগম এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভারের সাধারন সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশনের ডিভিশন প্রধান এবং ন্যাসভ্যাকের আরেক সহ উদ্ভাবক অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউরোএশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল এসোসিয়েশনের সভাপতি তুরস্কের অধ্যাপক ডা. হাইটেস বালাবান, তুরস্কের রেশনাল ড্রাগ ইউজ সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইসমাইল বালিক, টার্কি সোসাইটি অব গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজির সভাপতি অধ্যাপক ডা. হাক্কে গোচ্চেন, সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার ইউমেন ইন হেপাটোলজি ফোরামের সভাপতি ভারতের ডা. আভা নাগরাল এবং রোটারী ইন্টারন্যাশনাল ডিস্ট্রিক ৩২৮৩ বাংলাদেশের ডিস্ট্রিক গভর্নর নমিনী রোটারীয়ান শহিদুল বারী।

উল্লেখ্য দক্ষিন এশিয়ার লিভার বিশেষজ্ঞদের জন্য সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ তিন দিনব্যাপি এই লিভার সম্মেলনে সাড়া দেশ থেকে প্রায় তিন শতাধিক লিডার ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ এবং দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চল ও তুরস্ক থেকে বিশ জনের অধিক লিভার বিশেষজ্ঞ অংশগ্রহন করেন।

বাংলাদেশে একটি পৃথক স্পেশালিটি হিসেবে হেপাটোলজির যাত্রা শুরু নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে তৎকালীন আইপিজিএমআর-এ। বর্তমানে দেশে প্রায় দেড়শ জন লিভার বিশেষজ্ঞ কর্মরত আছেন। এদেশে লিভার বিশেষজ্ঞরা যৌথভাবে হেপাটাইটিস বি-র নতুন ওষুধ ন্যাসভ্যাক আবিষ্কারের কৃতিত্বের অধিকারী।

সাম্প্রতিক সময়ে দেশে লিভার চিকিৎসায় ব্যপক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। লিভার সিরোসিস রোগীদের হেপাটিক ভেনাস প্রেসার গ্রেডিয়েন্ট মাপা, লিভার ফেইলিওর রোগীদের চিকিৎসায় প্লাজমা এক্সেচেঞ্জ ও লিভার ডায়ালাইসিস, পিত্তনালীর চিকিৎসায় স্পাই গ্লাস এবং লিভার ক্যান্সার রোগীনের জন্য ট্রান্সআর্টারিয়াল কেমোএম্বোলাইজেশন এবং ইমিউন থেরাপীর মতন আধুনিক চিকিৎসাগুলো এখন দেশেই উপলব্ধ হচ্ছে আর এক্ষেত্রে নেতৃত্বস্থানীয় ভূমিকা পালন করছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশনটি।

এছাড়াও রোটারী ইন্টারন্যাশনাল, সাকিব আল হাসান ক্যান্সার ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন সংগঠনের সাথে সহযোগীতার মাধ্যমে লিভার রোগ বিষয়ক সচেতনতা তৈরী এবং হেপাটাইটিস বি সহ অন্যান্য লিভার রোগ প্রতিরোধের দেশের লিভার বিশেষজ্ঞরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ