মঙ্গলবার, ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

গুলশানে আকবর আলি খানের জানাজা, গার্ড অব অনার

নিজস্ব প্রতিবেদক

গুলশান আজাদ মসজিদে অর্থনীতিবিদ ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খানের জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। জানাজা শেষে তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা তথা গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় হাসপাতাল থেকে তার মরদেহ গুলশান-১ এর বাসায় নেওয়া হয়। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টায় গুলশানের বাসা থেকে তার মরদেহ আজাদ মসজিদে নেওয়া হয়। জুমার নামাজের পর খতিব মাওলানা মাহমুদুল হাসানের ইমামতিতে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

জানাজায় অংশ নেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ আকবর আলি খানের আত্মীয়স্বজন, সরকারি সাবেক বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও সাধারণ মানুষ।জানাজা শেষে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, বর্তমানের এই সংকটময় সময়ে সত্য কথা বলার মতো লোকের খুবই অভাব। এমন সময় তাকে জাতির খুব প্রয়োজন ছিল। কিন্তু এই মুহূর্তে তাকে হারানোর ক্ষতি অপূরণীয়।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আকবর আলি খান ছিলেন একজন মেধাবী মানুষ। তিনি একজন সরকারি আমলা ছিলেন। একজন সরকারি আমলা হলেও তার সারাজীবন ছিল জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ত।জানাজা শেষে মরদেহ দাফনের উদ্দেশ্যে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) রাতে মৃত্যুবরণ করেন আকবর আলি খান। তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন তিনি।১৯৪৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে জন্মগ্রহণ করেন আকবর আলি খান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভের পর কানাডার কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।সরকারি চাকরি দিয়ে তার পেশাজীবন শুরু। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে আকবর আলি হবিগঞ্জের মহুকুমা প্রশাসক বা এসডিও ছিলেন। সেসময় সক্রিয়ভাবে মুজিবনগর সরকারের সঙ্গে কাজ করায় তার বিচার করে পাকিস্তান সামরিক সরকার। তারই অনুপস্থিতিতে দেওয়া হয় ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড।

স্বাধীনতার পর আবার আমলা হিসেবে পেশাজীবনে প্রবেশ করেন। বাংলাদেশ সরকারের অর্থসচিব, মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা আকবর আলি সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টাও ছিলেন। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনাও করেছেন তিনি।অর্থনীতি বিষয়ে ‘পরার্থপরতার অর্থনীতি’ এবং ‘আজব ও জবর-আজব অর্থনীতি’ নামে তার দুটি বই বেশ জনপ্রিয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ