মঙ্গলবার, ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

আমতলী-তালতলী সড়কের নির্মাণ কাজে নিন্মমানের খোয়া ব্যবহার

আমতলী-তালতলী সড়কের তারিকাটা থেকে কটুপাত্রা তিন কিলোমিটার সড়ক ঠিকাদার মোঃ সগির হোসেন পঁচা ইটের খোয়া দিয়ে নির্মাণ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয়রা এমন অভিযোগ করেন। দ্রুত পঁচা ইটের খোয়া দিয়ে কাজ বন্ধ করে ভালো মানের ইটের খোয়া দিয়ে সড়ক নির্মাণের দাবী জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

জানাগেছে, আমতলী-তালতলীর-ফকিরহাট পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার উপকুলীয় আঞ্চলিক সড়ক। ২০২১ সালের অক্টোবর মাসে বার্ষিক জিওবি মেইনটেনেন্স প্রকল্পের আওতায় ৮ কোটি ৪৩ লক্ষ টাকা ব্যয়ে মানিকঝুড়ি থেকে কচুপাত্রা ব্রীজ পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার ৪০০ মিটার সড়ক নির্মাণে তিনটি প্যাকেজে দরপত্র আহবান করে। বরগুনার ঠিকাদার মোঃ সগির হোসেন ওই সড়ক নির্মাণের কাজ পায়। তিন প্যাকেটের সর্বশেষ প্যাকেজ তারিকাটা থেকে কচুপাত্রা সড়কের কাজ গত বছর ডিসেম্বর মাসে শুরু করেন ঠিকাদার। কিন্তু কাজের শুরুতেই ঠিকাদার কার্যাদেশ অনুসারে কাজ না করে নিজের ইচ্ছামাফিক করছেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

স্থানীয়রা পঁচা ইট দিয়ে সড়ক নির্মাণের বিষয়ে আমতলী এলজিইডি প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুনকে অবহিত করলেও তিনি গুরুত্ব দেয়নি বলে জানান এলাকাবাসী। তিন কিলোমিটার সড়কে পুরাতন পঁচা ইটের খোয়া দিয়ে নির্মাণ কাজ চলছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সরেজমিনে ঘুরে দেখাগেছে, সড়কে ২০-২৫ জন শ্রমিক কাজ করছেন। তারা পুরাতন ও পঁচা ইটের খোয়া সড়কে বিছিয়ে দিচ্ছে এবং রোলার মেশিন তা চাপাচ্ছে।

তারিকাটা এলাকার শহীদুল ইসলাম বলেন, ঠিকাদার পুরাতন ইটের খোয়া দিয়ে কাজ করছে। নিষেধ করেও কাজ বন্ধ করেনি। আমতলী প্রকৌশলীকে জানিয়েছি তিনি কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শ্রমিক বলেন, ঠিকাদার যেমন ইটের খোয়া দিয়ে কাজ করতে দিয়েছেন আমরা সেই ইটের খোয়া দিয়ে কাজ করছি। এখানে আমাদের দোষের কি? ঠিকাদারের লোকজন কাজ তদারকি করছে তাদের কাছে জিজ্ঞেস করেন।

বরগুনা ঠিকাদার মোঃ সগির হোসেনের সহযোগী মোঃ জসিম উদ্দিন বলেন, কিছু পঁচা খোয়া থাকতে পারে। তবে সব সড়কের ইটের খোয়া পঁচা নয়।
ঠিকাদার মোঃ সগির হোসেনের মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

আমতলী স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদফতরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী (এসও) মোঃ সামসুদ্দিন বলেন, পচা ইটের খোয়া নিয়ে কাজ করতে পারবে না। যদি করে থাকে সরেজমিনে গিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কিন্তু খোজ নিয়ে জানা গেছে, গত দুই দিনেও কাজ পরিদর্শনে যাননি।

আমতলী উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুনের মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

স্থানীয় সরকার অধিদফতর এলজিইডি বরগুনা কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী সুপ্রিয় মুখার্জি বলেন, নি¤œমানের ইটের খোয়া দিয় সড়ক নির্মাণের খবর পেয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। ভালো মানের ইটের খোয়া ছাড়া ওই সড়কের কাজ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষ

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ