12122019বৃহঃ
শিরোনাম:
শুক্রবার, 15 নভেম্বর 2019 13:33

ক্যালিফোর্নিয়ায় স্কুলে কিশোর বন্দুকধারীর হামলায় নিহত ২

নিউজ ফ্ল্যাশ ডেস্ক যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় এক স্কুলে বন্দুকধারীর হামলায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো তিন জন। বৃহস্পতিবার স্কুইল খোলার কিছুক্ষণ আগ দিয়ে সান্টা ক্ল্যারিটার সাউগুস হাই স্কুলে এই হামলা হয়। সন্দেহভাজন হামলাকারী হিসেবে ১৬ বছর বয়সী এক আহত কিশোরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার নাম নাথানিয়েল বেরহাউ। এ খবর দিয়েছে বিবিসি। খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ৩৮ মিনিটে সর্বপ্রথম বন্দুক হামলা সম্পর্কে জানাজানি হয়। লস এঞ্জেলেস কাউন্টি শেরিফ এলেক্স ভিলানুয়েভা এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, প্রথম খবর পাওয়ার মুহূর্তের মধ্যে বেশ কয়েকটি জরুরি কল পায় তারা। প্রথম খবর পাওয়ার দুই মিনিটের মধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশের প্রথম ইউনিটটি। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনাস্থলে পৌঁছে ছয় ব্যক্তিকে গুলির আঘাতে আহত অবস্থায় পায় তারা। প্রাথমিকভাবে তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুই জনের মৃত্যু হয়। আহতদের মধ্য থেকে সন্দেহভাজন হামলাকারীকে আটক করা হয়। নিহতদের মধ্যে একজন ১৬ বছর বয়সী কিশোরী ও অপরজন ১৪ বছর বয়সী এক কিশোর। পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে যে, বৃহস্পতিবার সন্দেহভাজন হামলাকারীর জন্মদিন ছিল। বার্তা সংস্থা এপি স্কুলের এক শিক্ষার্থীকে উদ্ধৃত করে বলেছে, হামলাকারী নাথানিয়েল অন্তর্মুখী ছিল তবে স্বভাবজাতভাবে বুদ্ধিমান ছিল। স্কুলের নজরদারী ক্যামেরার ফুটেজে দেখা গেছে, নিজের ব্যাগ থেকে বন্দুক বের করে পাঁচ শিক্ষার্থীকে গুলি করে নাথানিয়েল। সবশেষে নিজের মাথায় গুলি করে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি পয়েন্ট ৪৫ ক্যালিবারের আধা-স্বয়ংক্রিয় পিস্তল উদ্ধার করেছে। পুলিশ জানিয়েছে, হামলার আগ দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হুমকি দিয়ে থাকতে পারে নাথানিয়েল। এরকম একটি গুঞ্জন রয়েছে। এ বিষয়ে খতিয়ে দেখা হবে। আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ হামলার সময় মার্কিন পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক একটি বিল নিয়ে বিতর্ক চলছিল। অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের পক্ষে যুক্তি প্রদর্শন করছিলেন ডেমোক্র্যাট সিনেটর রিচার্ড ব্লুমেন্থাল। বক্তব্যের মাঝখানেই হামলার বিষয়ে অবগত হন তিনি। সিনেটর বলেন, এই বিল পাস করতে ব্যর্থ হলে আমরাও দোষী। এটা কেবল রাজনৈতিক কোনো দায়িত্বই নয়, নৈতিক বাধ্যতাও। প্রসঙ্গত, অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ, যুক্তরাষ্ট্রে একটি রাজনৈতিকভাবে বিতর্কিত বিষয়। ২০১৭ সালের এক জরিপ অনুসারে, প্রায় ৪০ শতাংশ আমেরিকান ব্যক্তিগত আগ্নেয়াস্ত্র থাকার বা আগ্নেয়াস্ত্র আছে এমন বাড়িতে বাস করার কথা জানিয়েছে। আধুনিক বিশ্বে আগ্নেয়াস্ত্রের হামলায় হত্যার হার সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রের। ওয়াশিংটন পোস্ট অনুসারে, ১৯৯৯ সালে কলোরাডোর কলুম্বাইন হাই স্কুলে ভয়াবহ বন্দুক হামলার পর থেকে বিভিন্ন বন্দুক হামলার শিকার হয়েছেন অন্তত ২ লাখ ৩০ হাজার মানুষ।
পড়া হয়েছে 16 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: শুক্রবার, 15 নভেম্বর 2019 13:41

এ বিভাগের সর্বশেষ সংবাদ

ফেসবুক-এ আমরা