12082019রবি
মঙ্গলবার, 12 নভেম্বর 2019 21:26

মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন: গণতন্ত্রের পরিহাস বলল কংগ্রেস-এনসিপি, এখনও সময় আছে, বললেন উদ্ধব

নিউজ ফ্ল্যাশ ডেস্ক সময় ছিল রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত। তার মধ্যে সরকার গঠনের দাবি জানাতে হত এনসিপিকে। ঘণ্টা দুয়েক বাকি থাকতেই মঙ্গলবার মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়ে গেল। সব পক্ষকে সুযোগ না দিয়ে সাত তাড়াতাড়ি এই সিদ্ধান্তের জন্য এ বার কেন্দ্রীয় সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করাল বিরোধীরা। তাদের মতে, কোনও নিয়ম-নীতি না মেনে সরাসরি ভারতীয় গণতন্ত্রের উপর আঘাত হেনেছে মোদী সরকার। এ দিন রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হওয়ার পরই মহারাষ্ট্রে কংগ্রেস এবং এনসিপি-র মধ্যে বৈঠক হয়। তার পর আহমেদ পটেল, শরদ পওয়র এবং মল্লিকার্জুন খড়্গে-সহ দুই দলের নেতারা যৌথ সাংবাদিক বৈঠক করেন। সেখানে কংগ্রেস নেতা আহমেদ পটেল বলেন, ‘এই সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করছি। গত পাঁচ বছরে এই সরকার গণতান্ত্রিক শাসনব্যস্থার কোনও নিয়ম-কানুন মানেনি। এ ভাবে রাষ্ট্রপতি শাসনের জারি করে গণতন্ত্রকে পরিহাস করা হয়েছে। বিজেপি, শিবসেনা, এনসিপির পর কংগ্রেসকে সরকার গঠনের জন্য ডাকাই হয়নি।’’ শিবসেনাকে সমর্থনে গড়িমসি করার অভিযোগে আহমেদ পটেল বলেন, ‘‘আনুষ্ঠানিক ভাবে ১১ নভেম্বরই আমাদের সঙ্গে প্রথম যোগাযোগ করে শিবসেনা। ওদের সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’’ সরকার গড়ার সিদ্ধান্ত নেই তাঁরাও তাড়াহুড়ো করতে চান না বলে জানান শরদ পওয়র। তিনি বলেন, ‘‘আমাদের কোনও তাড়াহুড়ো নেই। কংগ্রেসের সঙ্গে সিবস্তার আলোচনা সেরেই সিদ্ধান্ত নেব শিবসেনাকে সমর্থন দেওয়া হবে কি না।’’ কংগ্রেস-এনসিপির যৌথ সাংবাদিক বৈঠক শেষ হতেই মুম্বইয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। তিনি বলেন, ‘‘আমি ক্ষমতালোভী নই। ভিন্ন আদর্শে বিশ্বাসী দলগুলি মিলে একসঙ্গে সরকার চালাতে গেলে সবিস্তার আলোচনা প্রয়োজন। কালই প্রথম কংগ্রেস এবং এনসিপির সঙ্গে যোগাযোগ করি। আমরা ৪৮ ঘণ্টা সময় চেয়েছিলাম। কিন্তু জোট সরকার কীভাবে হবে, তা নিয়ে আরও স্বচ্ছতা চেয়েছিল কংগ্রেস। এখন হাতে ছ’মাস সময় রয়েছে। কংগ্রেস এবং এনসিপির সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নেব।’’ বিজেপি প্রতিশ্রুতি পালন করেনি বলেই তাদের সঙ্গে জোট টেকেনি বলেও জানান উদ্ধব। তিনি বলেন, ‘‘দুঃসময়ে বিজেপির পাশে ছিলাম। ওদেরও প্রতিশ্রুতি পালন করা উচিত ছিল। বিজেপি-শিবসেনা অনেক বছর একসঙ্গে ছিল। কিন্তু এখন কংগ্রেস এবং এনসিপির হাত ধরতে হবে শিবসেনাকে। দু’পক্ষের সঙ্গেই কথা বলব। মন্ত্রিত্ব ছাড়ার জন্য অরবিন্দ সবন্তকে ধন্যবাদ। ক্ষমতার প্রতি লোভ থাকে অনেকের, উনি তার মধ্যে পড়ে না।’’ তবে উদ্ধবের দাবি উড়িয়ে বিজেপি জানিয়ে দিয়েছে, সরকার গড়তে চেষ্টায় কোনও ত্রুটি রাখবে না তারা। দলের নেতা নারায়ণ রানে বলেন, ‘‘কংগ্রেস-এনসিপি মিলে শিবসেনাকে বোকা বানানোর চেষ্টা করছে। বিজেপি সরকার গড়তে চেষ্টা চালিয়ে যাবেন। চেষ্টায় কোনও খামতি রাকবেন না দেবেন্দ্র ফডনবীস।’’
পড়া হয়েছে 18 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: মঙ্গলবার, 12 নভেম্বর 2019 21:32

এ বিভাগের সর্বশেষ সংবাদ

ফেসবুক-এ আমরা