11192018সোম
শুক্রবার, 14 এপ্রিল 2017 15:36

আফগানিস্তানে বড় বোমার হানা। জেনে নিন এই বোমার বিষয়ে ৭টি তথ্য

এই সেই মোয়াব বোমা। ছবি: উইকিপিডিয়া এই সেই মোয়াব বোমা। ছবি: উইকিপিডিয়া
ভিডিওতে দেখে নিন কেমন ভাবে কাজ করে এই বোমা। জঙ্গি সংগঠন আইএস-কে নিশানা করে আফগানিস্তানে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় নন-নিউক্লিয়ার বোমা নিক্ষেপ করল আমেরিকা। কিন্তু এই বোমার বিশেষত্ব জানেন কী? আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্তের কাছে আইএস জঙ্গিঘাঁটি ভেঙে দেওয়ার জন্য আমেরিকা তাদের সবচেয়ে বড় বোমাটি নিক্ষেপ করল। এটি অবশ্য নিউক্লিয়ার বোমা নয়। তবে এর ফলে প্রায় ৩৬ জন আইএস জঙ্গি মারা গিয়েছে বলে দাবি করেছে পেন্টাগন। সঙ্গে জঙ্গিদের ব্যবহার করা সুড়ঙ্গও গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আফগান সরকারের তরফ থেকেও দাবি করা হয়েছে, এই বোমার আঘাতে তাদের কোনও নাগরিকদের মৃত্যু হয়নি। এবার দেখে নেওয়া যাক, এই বোমাটিকে কেন ‘সব বোমার মা’ বা ‘মাদার অফ অল বম্বস’ বলে চিহ্নিত করা হয়। • এই বোমাটির পুরো নাম ‘ম্যাসিভ অর্ডন্যান্স এয়ার ব্লাস্ট বম্ব’ বা MOAB। • মাটিতে পড়ার ঠিক আগেই এই বোমাটি ফাটে। হাওয়ার চাপে গুঁড়িয়ে দেয় সুড়ঙ্গ থেকে শুরু করে মাটির নীচের কোনও নির্মাণ। বোমাটি যেখানে পড়ে, তার ১ মাইলের মধ্যে ধ্বংস করে দেয় সবকিছু। • বোমাটির দৈর্ঘ্য ৩০ ফুট, ব্যাস ৪০ ইঞ্চির মতো, ওজন প্রায় ১০ হাজার কেজি এবং ১০ টনের বেশি বিস্ফোরক বহন করতে পারে। • মোয়াবের মধ্যেই জিপিএস দিয়ে ‌আগে থেকেই বোমাটির নিশানা ঠিক করে দেওয়া যায়। বোমাটি ফেলার জন্য প্যারাশ্যুট ব‌্যবহার করা হয়, যাতে ধীরে ধীরে হাওয়ার চাপ নিয়ে বোমাটি নিশানায় পৌঁছয়। • ২০০৩ সালের ১১ মার্চ প্রথম বোমাটি তৈরি করে পরীক্ষা করা হয় ফ্লোরিডার এয়ারবেস-এ। বোমাটি বানাতে শুরু করার ৯ মাসের মধ্যেই এই পরীক্ষা হয়। • ইরাক যুদ্ধের সময়ে ইরাকি সেনাদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করার জন্যই মূলত এই বোমাটি বানানো হয়। তবে সেই সময়ে আর ব্যবহার করা হয়নি। • মোয়াবের আগে স্তরের নন্-নিউক্লিয়ার বোমা ছিল আমেরিকার কাছেই। BLU-82 নামের এই বোমাটি ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় ব্যবহার করা হয়েছিল। আইএস জঙ্গিদের নিশানা করে এই হানায় দৃশ্যতই খুশি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি আমাদের সেনাদের নিয়ে খুবই গর্বিত। এটি আরও একটি সাফল্যের ঘটনা।’ তবে এই বোমা দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধেও ব্যবহার করা হবে কিনা, তা নিয়ে সরাসরি উত্তর দেননি ট্রাম্প। (তথ্যসূত্র: মিলিটারি-টেক ও রয়টার্স)
পড়া হয়েছে 345 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: শুক্রবার, 14 এপ্রিল 2017 15:52