12122019বৃহঃ
শিরোনাম:
বুধবার, 09 মার্চ 2016 18:12

মাইবার্গকে ফেরালেন নাসির

< > নিউজফ্ল্যাশ ডেস্ক এশিয়া কাপের মূলপর্বে যাওয়ার লড়াইয়ে নেদারল্যান্ডকে ১৫৪ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। জবাব দিতে গিয়ে আত্মবিশ্বাসের সাথেব নিজেদের ইসিংস শুরু করেছিল ডাচরা। তবে ডাচদের রানের রেশ টেনে ধরেন অাল আমিন। দলীয় ২১ রানে ডাচদের ইনিংসে প্রথম অাঘাত হানেন এই পেসার। বেরেসিকে সাব্বিরের ক্যাচ বানিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরান আল আমিন। এরপর বাংলাদেশের জন্য পথের কাঁটা হয়ে থাকা স্টিভেন মাইবার্গকে ফেরান নাসির হোসেন। আউট হবার আগে ২৯ বলে ২৯ রান করেন মাইবার্গ। এর আগে তামিমের ৮৩ রানে ভর করে ৭ উইকেটে ১৫৩ রান করেছে বাংলাদেশ। টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানায় নেদারল্যান্ডস। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো করে টাইগাররা। ৩ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ১৮ রান। চতুর্থ ওভারের শুরুতেই সৌম্য সরকারের উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ। চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ম্যাকিরিনের বলে কাট করতে গিয়ে উইকেটরক্ষক ব্যারিসিকে ক্যাপ দিয়ে ফিরে আসেন সৌম্য। আউট হবার আগে ১৩ বলে ১৫ রান করেন এই ওপেনার। আর একবার ভালো শুরুর পরেও ইনিংসটাকে বড় করতে পারলেন না সৌম্য সরকার। এর আগে প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে বুখারির বলে ক্যাচ দিয়েও সে যাত্রায় বেচে যান সৌম্য। এরপর বাংলাদেশের ইনিংসটাকে টানতে থাকেন তামিম-সাব্বির জুটি। এই জুটি ২৭ বল খেলে স্কোরবোর্ডে ৩৩ রান যোগ করেন। নবম ওভারের দ্বিতীয় বলে ভ্যান ডার মারইউয়ের বলে বিশাল একটি ছয় মারেন সাব্বির রহমান। এরপরের বলেই লেগ বিফোরের ফাঁদে পরেন এশিয়া কাপের সেরা খেলোয়ার। অপরপ্রান্তে অবশ্য বেশ স্বচ্ছন্দে খেলতে থাকেন তামিম ইকবাল। তবে খারাপ সময় যেন কাটতেই চাইছে না সাকিব আল হাসানের। বাছাইপর্বের প্রথম ম্যচেও রান পাননি এই অলরাউন্ডার। ডাচ অধিনায়ক পেটার বোরেনের অফ স্টাম্পের বাইরের বলে কাট করতে গিয়ে মাইবার্গের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান সাকিব। ২০১৫ সালের এপ্রিলে পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বশেষ হাফসেঞ্চুরি করেছিলেন সাব্বির। এরপর ১৩ ইনিংসে মাত্র একটি ত্রিশোর্ধ রানের ইনিংস রয়েছে সাকিবের। এশিয়া কাপে ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে ব্যর্থ হলেও বিশ্বকাপে জ্বলে উঠে তামিমের ব্যাট। ১৩তম ওভারের পঞ্চম বলে মারইউয়ের বলে দুই রান নিয়ে নিজের অর্ধশতক পূরণ করেন তামিম ইকবাল। ২০১২ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সর্বশেষ হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন তামিম। হাফসেঞ্চুরি করতে মাত্র ৩৭ বল খেলেন তামিম। ৩টি চার ও দুটি ছয়ে এই হাফ সেঞ্চুরি করেন তিনি। অর্ধশতকের পর আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেন তামিম। তবে ১৫তম ওভারে আউট হয়ে ফির যান দি ফিনিশার খ্যাত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। গুটেনের বলে আউট হবার আগে ৯ বলে ১০ রান করেন মাহমুদউল্লাহ। মাহমুদইল্লাহ ফেরার পরপরই আউট হন মুশফিকুর রহিমও। সাকিবের মতো তারও ব্যাটিং দুর্দশা কাটছে না। এশিয়া কাপের পর বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেও ব্যর্থ হলেন বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক মুশফিক। অধিনায়ক মাশরাফি ফিরে যান ৭ রান করে। শেষ ওভারে তামিম ও আরাফাত সানি একটি করে ছয় মারলে ১৫৩ রানের লড়াকু সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। ভারতের ধর্মশালার হিমাচল প্রদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বুধবার সাড়ে ৩টায় মাঠে নামে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, নাসির হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), আরাফাত সানি, আল-আমিন হোসেন ও তাসকিন আহমেদ। নেদারল্যান্ডস একাদশ: স্টিফেন মাইবার্গ, ওয়েসলে ব্যারেসি (উইকেটরক্ষক), বেন কুপার, টম কুপার, রোয়েলফ ভ্যান ডের মারওয়ে, টিম ভ্যান ডের গুগটেন, আহসান মালিক, লোগান ভ্যান বিক, পল ভ্যান মেকারেন, পিটার বোরেন (অধিনায়ক) ও মুদাসসার বুখারি। < >
পড়া হয়েছে 465 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: বুধবার, 09 মার্চ 2016 18:21