11212019বৃহঃ
রবিবার, 03 জানুয়ারী 2016 07:49

আ'লীগ-বিএনপি পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি

নিউজফ্ল্যাশ প্রতিবেদক আগামী ৫ জানুয়ারি দশম সংসদ নির্বাচনের দুই বছরপূর্তিকে কেন্দ্র করে আবারও উত্তপ্ত হচ্ছে রাজনৈতিক অঙ্গন। ওই দিন একই স্থানে পাল্টাপাল্টি সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। দিনটিকে 'গণতন্ত্র হত্যা' দিবস হিসেবে পালন করতে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ সারাদেশের জেলা সদরে সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। গতকাল শনিবার দুপুরে যৌথসভা শেষে এ কর্মসূচি ঘোষণা করে দলটি। অন্যদিকে, সন্ধ্যায় দলীয় বৈঠক শেষে 'গণতন্ত্র বিজয় দিবস' হিসেবে পালন করতে একই দিন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ রাজধানীর ১৮টি পয়েন্টে পাল্টা সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। এ পরিস্থিতিতে দীর্ঘ এক বছর পর আবার উত্তেজনা দেখা দিয়েছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। ৫ জানুয়ারি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি চেয়ে ইতিমধ্যে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাছে আবেদন করেছে বিএনপি। গত রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশের অনুমতি মেলেনি। সমাবেশের অনুমতির বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (গণমাধ্যম) মারুফ হোসেন সরদার সমকালকে বলেন, বিএনপির অনুমতির বিষয়টি যাচাই-বাছাই চলছে। এ বিষয়ে পরে পুলিশের সিদ্ধান্ত জানানো হবে। তবে পুলিশের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, ৫ জানুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দেওয়া না-দেওয়ার বিষয়ে ৪ জানুয়ারির আগে কোনো সিদ্ধান্তই জানা যাবে না। বিষয়টি নিয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে যোগাযোগ করা হয়েছে। এখনও কোনো সবুজ সংকেত মেলেনি। পুলিশের ওই সূত্রটি জানায়, ৫ জানুয়ারি বিএনপি শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির কথা মুখে বললেও আগের অভিজ্ঞতা থেকে পুলিশ তা বিশ্বাস করতে পারছে না। এজন্য গোয়েন্দা তথ্য নেওয়া শুরু হয়েছে। গোয়েন্দা তথ্য ইতিবাচক হলেই সমাবেশের অনুমতির বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। বিএনপি :শান্তিপূর্ণভাবে ৫ জানুয়ারি 'গণতন্ত্র হত্যা দিবস' হিসেবে পালন করতে চায় বিএনপি। এ লক্ষ্যে রাজধানী ও জেলা সদরগুলোতে সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে যৌথ সভা শেষে তিনি এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। মির্জা ফখরুল বলেন, ৫ জানুয়ারি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে এরই মধ্যে সরকার ও পুলিশ প্রশাসনের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। সমাবেশ সফল করতে যৌথ সভায় সার্বিক প্রস্তুতি নিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে। সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশের অনুমতি দিয়ে 'গণতন্ত্রকে নিয়মতান্ত্রিক পথে চলতে দিতে' সরকার সহায়তা করবে বলে আশাবাদী মির্জা ফখরুল। এদিকে বিএনপির একাধিক সূত্র জানায়, ৫ জানুয়ারির কর্মসূচি সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণভাবে পালন করতে চায় দলটি। এই দিনে কর্মসূচি পালনের অনুমতি না পাওয়া গেলে পরদিন এমনকি তার পরের দিনও একই কর্মসূচির জন্য অনুমতি চাইবে দলটি। নেতাকর্মীদের মাথায় মামলার বোঝা থাকায় কোনো ধরনের সংঘাতে যেতে চাচ্ছেন না দলের নেতারা। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রি. জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ গতকাল সমকালকে বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে 'গণতন্ত্র হত্যা দিবস' পালন করতে বিএনপির একাধিক বিকল্প চিন্তা-ভাবনা আছে। তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারি আমাদের অনুমতি না দিলে পরবর্তী সময়েও আমরা সমাবেশের অনুমতি চাইব
পড়া হয়েছে 661 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: রবিবার, 03 জানুয়ারী 2016 07:59