09232019সোম
শুক্রবার, 22 ফেব্রুয়ারী 2019 14:23

মেয়েরা লুকোয় কী ?

নিউজ ফ্ল্যাশ ডেস্ক : যৌনমিলনের শেষ পর্বে চূড়ান্ত ভালোলাগার এক মুহূর্ত হল অরগ্যাজম। তবে অরগ্যাজম সবসময় সত্যি হয় না! আমরা না...এটা বলছে সমীক্ষাই। দাবি, অরগ্যাজমের নাটক করে থাকেন বহু নারী-পুরুষ। তবে নারীদের সংখ্যাই এক্ষেত্রে বেশি। তার আগে অরগ্যাজম সম্পর্কে যা যা জানা জরুরি! লিঙ্গ-ভেদ নেই! সেক্সের চরম মুহূর্ত বা চলতি ভাষায় 'ক্লাইম্যাক্স' নামে পরিচিত অরগ্যাজম। অনেকেরই ধারণা, এই অনুভূতি শুধু মহিলাদের হয়। তবে তা নয়, অরগ্যাজমের কোনও লিঙ্গ-ভেদ নেই। বিজ্ঞান যা বলছে... যৌনমিলনের সময় চরম শারীরিক ও মানসিক আনন্দের থেকে সেক্সুয়াল স্টিমুলেশন হয়। এই সময় শরীর থেকে এন্ডোরফিন্স নামের একটি হরমোন নিঃসৃত হয়। এই সময়কেই অরগ্যাজম বলা হয়। পুরুষ ও নারীর অরগ্যাজম! নারী-পুরুষ নির্বিশেষে অরগ্যাজম হলেও প্রকৃত অর্থে বীর্য বেরিয়ে যাওয়া মানেই অরগ্যাজম নয়। পুরুষদের মধ্যে কারোর কারোর শীঘ্র-পতনের সমস্যা থাকে। তবে বীর্যপাত হলেই অরগ্যাজম হয়েছে এটা ভাবা ভুল। অর্থাৎ, তা চরম সুখ নাও হতে পারে। পুরুষদের থেকে মহিলাদের অরগ্যাজমে সময় বেশি লাগে। চূড়ান্ত পর্যায়ে উত্তেজনায় পৌঁছতে নারীর ক্ষেত্রে শারীরিকের পাশাপাশি মানসিক আনন্দও অত্যন্ত জরুরি। তাই দীর্ঘ সময় অরগ্যাজম না হলে মহিলাদের মধ্যে অ্যানঅরগ্যাজমিয়া নামক মানসিক সমস্যা দেখা যায়। গবেষকদের মতে, বিশ্বে প্রতি ১০০ মহিলার মধ্যে ১৫ জনই এই রোগে ভোগেন। চরম সুখের নাটক! মেয়েদের ক্ষেত্রে অরগ্যাজম বিষয়টি অত্যন্ত লক্ষণীয়। কারণ বিবিধ কারণে তারা অরগ্যাজম লুকিয়ে যায় বলে চলতি ধারণা রয়েছে। তবে এর পিছনে কারণ জানলে ধারণায় পরিবর্তন আসতে বাধ্য। যৌনতার সময় নিজেদের ভালো লাগা বা খারাপ লাগা নিয়ে অনেকেই আলোচনা করে না। তাই অনেকের ক্ষেত্রেই যৌনমিলন যান্ত্রিক হয়ে উঠেছে। সেক্ষেত্রে অনেকেই সঙ্গীর চাপাচাপি থেকে বাঁচতে অরগ্যাজমে পৌঁছানোর ভান করে। এছাড়াও, যাঁদের যোনিপথ তুলনায় শুকনো থাকে, তাঁদের সেক্সে বেদনা বেশি। এমন অনেকেই ব্যথা থেকে বাঁচতে অরগ্যাজমের ভান করেন। মনে রাখুন! বিশেষজ্ঞদের মতে, যৌনমিলনের সময় তাই পার্টনারের ভালো লাগার কথাও ভাবা উচিত। জড়তা কাটিয়ে, সংকোচ এড়িয়ে মুক্ত মনের মিলনেই চরম আনন্দ। সূত্র : এই সময়।
পড়া হয়েছে 90 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: শুক্রবার, 22 ফেব্রুয়ারী 2019 14:24