08232019শুক্র
বৃহস্পতিবার, 20 জুলাই 2017 07:13

চিকুনগুনিয়ায় বাড়ছে মৃত্যু

< > নিউজ ফ্ল্যাশ প্রতিবেদক চিকুনগুনিয়ায় রোগীর মৃতু্য বাড়ছে। অন্য কোনো রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হলে আগের রোগের জটিলতা বাড়ছে।এ কারণে মৃতু্য হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাপক ডা. বে-নজীর আহম্মেদ বুধবার বলেন, ‘যে ঘটনাগুলো নিয়ে মৃতদের স্বজনদের কাছে প্রশ্ন ওঠে কিংবা মানুষের মধ্যেও সন্দেহ ঢুকে যায় তা দূর করার স্বার্থেই এসব মৃত্যুর ঘটনায় ডেথ অডিট করা জরুরি। এতে করে হয়তো চিকুনগুনিয়ার নতুন কোনো প্রভাব বা গতি-প্রকৃতির চিত্রও পাওয়া যেতে পারে; যাতে পরবর্তী সময়ে চিকুনগুনিয়া রোগীদের চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা আরো সহজ হয়ে উঠবে। ’ জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমাদের কাছে ইতিমধ্যেই এমন ধরনের কিছু খবর এসেছিল, কিন্তু সেগুলো যাচাই-বাছাই করে কোনো ভিত্তি পাইনি। তবে যদি নিশ্চিতভাবে কোনো তথ্য-উপাত্ত আমাদের কাছে আসে আমরা সে ক্ষেত্রে তা খতিয়ে দেখব। ’ মহাপরিচালক বলেন, যদি কোনো হাসপাতালে বা চিকিৎসকদের অধীনে চিকিৎসা চলাকালে অন্য কোনো জটিল রোগের সঙ্গে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে কারো মৃত্যু ঘটে সেটাও ওই চিকিৎসক বা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে জানানো উচিত। তবে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হলেও অন্য জটিল রোগের কারণে যদি কারো মৃত্যু ঘটে থাকে সেটাকে চিকুনগুনিয়ায় মৃত্যু বলা ঠিক হবে না। ’ খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ শুরুর পর চলতি মাসের শুরুতে সংগীত গবেষক করুণাময় গোস্বামী জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। ওই সময় চিকুনগুনিয়ার প্রভাবে তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ কেউ প্রচার করেন। এদিকে গত মঙ্গলবার রাতে অভিনেতা আবদুর রাতিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তিনি অন্যান্য জটিলতার পাশাপাশি চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত ছিলেন। তাঁর মৃত্যুর কারণ হিসেবে গতকাল অনেকেই চিকুনগুনিয়ার কথা বলেছে। এর আগে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত রোববার রাতে আকলিমা (৬০) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়। তাঁর মেয়ে সাজেদার দাবি, ‘আমার মা তিন দিন ধরে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে স্থানীয় ফার্মেসি থেকে ওষুধ খেয়েছেন। জ্বর কিছু কমলেও মাথাব্যথা ও হাত-পায়ে ব্যথা ছিল। রবিবার সন্ধ্যার পরে তাঁর অবস্থা খারাপ হতে থাকে। তখন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মাকে মৃত ঘোষণা করেন। ’ রোববারই সকালে নাট্যাভিনেত্রী শবনাম ফারিয়ার বাবা ডা. মীর আবদুল্লাহ ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা যান। ফারিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বাবা আগে থেকেই অনেকগুলো রোগে ভুগছিলেন। কিন্তু সর্বশেষ বাবা ও মা দুজনই চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হন। তাঁরা প্রথমে বাসায়ই চিকুনগুনিয়ার স্বাভাবিক চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। একপর্যায়ে বাবার নানা জটিলতা বেড়ে গেলে আমরা তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাই। হাসপাতালে যাওয়ার পর পর্যায়ক্রমে তাঁর অন্য রোগগুলোর জটিলতা বেড়ে যায় এবং শেষ পর্যন্ত তিনি মারা যান। ’ এর আগে শনিবার একজন পুলিশ সদস্য এবং একজন আইনজীবী চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়। এ ছাড়া বিচ্ছিন্নভাবে আরো কয়েকজনের মৃত্যুর খবর প্রকাশ করেছে কোনো কোনো গণমাধ্যম। এদিকে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান—আইইডিসিআর সূত্র জানায়, চিকুনগুনিয়া শনাক্তের জন্য গত ৯ এপ্রিল থেকে ১৮ জুলাই পর্যন্ত আইইডিসিআরে যেসব রক্তের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে তাতে নিশ্চিত চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৩৭। দেশের বিভিন্ন জেলার সিভিল সার্জন ও মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে সম্ভাব্য রোগীর সংখ্যা পাঠানো হয়। সম্ভাব্য রোগীর সংজ্ঞা হিসাবের ক্ষেত্রে আইইডিসিআর থেকে জানানো হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি জ্বর এবং গিটে ব্যথা বা প্রদাহ নিয়ে চিকিৎসকের কাছে যান তবে তিনি সম্ভাব্য চিকুনগুনিয়া রোগী হিসেবে বিবেচিত হন। এসব তথ্য পাওয়ার পর আইইডিসিআর নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে যাচাই-বাছাই করে রোগীর সংখ্যা চূড়ান্ত করা হয়েছে। < >
পড়া হয়েছে 311 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: বৃহস্পতিবার, 20 জুলাই 2017 07:31