10222017রবি
শুক্রবার, 06 অক্টোবার 2017 13:26

যমজ সন্তান হওয়ার কারণ কী?

অনেক গর্ভবতী প্রসবের সময় একসঙ্গে দুই অথবা তার অধির সন্তানের জন্ম দিয়ে থাকেন ৷ গর্ভে একের অধিক সন্তান ধারণ করা অস্বাভাবিক কিছু নয়৷ কিন্তু কী কী কারণে যমজ সন্তান হয়? বিশ্লেষণ করলেন কলকাতা আর কর মেডিক্যাল কলেজের স্ত্রী-রোগ বিশেষজ্ঞ ড: অরূপ মাজি৷ যমজ দুই ধরনের হতে পারে ১) Fraternal ২) Identical. Fraternal যমজ দুইটি ভিন্ন ডিম থেকে বিকাশ লাভ করে। বেশিরভাগ যমজই fraternal । আর অসময়ে আকস্মিক ও প্রারম্ভে গর্ভধারণের কারণে অনেক সময় একই ডিম বিভক্ত হয়ে Identical যমজ সৃষ্টি করে। কী কী কারণ? ১. পরিসংখ্যান বলছে, গত কয়েক বছরে যমজ সন্তান প্রসবের হার বেড়েছে ৷ চিকিৎসকরা মনে করছেন মাল্টিপ্‌ল…
আজকাল ইয়ং নারীদের শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ করা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। কেউ চান না শরীরে বাড়তি মেদ। তাই নারীরা বুঝে হোক না বুঝে হোক প্রেগন্যান্সিতেও ওজন কমাতে চেষ্টা করেন। বিশেষজ্ঞগণ গবেষণায় দেখেছেন, যারা প্রেগন্যান্সিতে ডায়েটিং ও এক্সারসাইজ করেন তাদের প্রিম্যাসিউর ডেলিভারি, সন্তানের ওজন কম হওয়াসহ দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। তাই যারা সন্তান নিতে চান তাদের অবশ্যই মনে রাখা দরকার গর্ভস্থ সন্তানের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব হলে সন্তানের নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিতে পারে। তাই কোনো অবস্থাতেই গর্ভাবস্থায় ডায়েটিং করা উচিত নয়। বরং গর্ভাবস্থায় মায়ের অধিক পুষ্টিসম্পন্ন খাবার আহার করা উচিত। বিশেষজ্ঞগণ বলছেন, গর্ভবতী মায়ের পর্যাপ্ত নিউট্রিশন না পেলে জন্ম নেয়া…
শনিবার, 30 সেপ্টেম্বর 2017 23:15

মহিলাদের বয়স বাড়লে ....

নিউ ইয়র্ক: সাম্প্রতিক এক সমীক্ষা বলছে, বয়সের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে মহিলাদের মিলনের আকাঙ্খা ও চাহিদা। এই সমীক্ষা প্রমাণ করে দিল, বয়সের সঙ্গে মহিলাদের যৌন আকাঙ্খা কমে বলে এতদিন যা জানা ছিল, তা ভুল। সমীক্ষা বলছে, বয়স বাড়ার সঙ্গে মহিলারা নিয়মিত সময় অন্তর মিলনের আকাঙ্খা করেন। নিউ ইয়র্কের মার্কেটিং ফার্ম লিপ্পি টেলর ও হেলদি ওয়েমেন ডট ও আর জি-র যৌথ উদ্যোগে করা এই সমীক্ষা আরও বলছে, বয়স্ক মহিলারা আরও ‘স্পাইসি সেক্সলাইফ’-এর চাহিদা মনের মধ্যে পোষণ করেন। প্রায় এক হাজার জন মহিলার উপর চালানো এই সমীক্ষা চালানো হয়। ফলাফলে দেখা যায়, ৫৪ শতাংশ মহিলার বয়স বাড়লে যৌনতার চাহিদা বাড়ার পক্ষে রায়…
অত্যাধুনিক অফিস মানেই সর্বত্র কৃত্রিম আলোর ছড়াছড়ি। অফিসের ভিতরে থাকলে দিন, রাত, রোদ, মেঘ, বৃষ্টি কিছুই বোঝার উপায় নেই। কিন্তু শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঝাঁ চকচকে অফিসরুম কোথাও আখেরে নিজেদেরই ক্ষতি করছে না তো? সাম্প্রতিক গবেষণা অন্তত ইঙ্গিত দিচ্ছে এমনটাই। হার্ভার্ড টি.এইচ চান স্কুল অব পাবলিক হেল্থ-এর একটি গবেষণা জানাচ্ছে, যে সমস্ত মহিলারা বিশেষত রাতে কৃত্রিম আলোর মধ্যে বসে কাজ করেন তাঁদের মধ্যে বাড়ছে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি। গবেষণার জন্য উপগ্রহের পাঠানো তথ্যের উপরও নির্ভর করেছেন বিশেষজ্ঞরা। রাতে কোন কোন এলাকায় বেশি আলো জ্বলে, সেই সমস্ত জায়গা বেছে নিয়ে সেখানকার অফিসের মহিলাদের উপরেও সমীক্ষা চালানো হয়েছে। পাশাপাশি মহিলাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থানের উপরেও নজর রাখা…
নিউজ ফ্ল্যাশ ডেস্ক বিশ্বে ২০১৫ সালে ফুসফুসের সাধারণ দুই রোগে ৩৬ লাখ মানুষমারা গেছে। ল্যানসেট রেসপাইরেটরি মেডিসিন বৃহস্পতিবার এ তথ্য প্রকাশ করে। ধূমপান এবং দূষণের কারণে সিওপিডিতে(ক্রনিক অবস্ট্রাক্ট পালমুনারি ডিজিজ) আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৩২ লাখ লোক। অ্যাজমায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে আরো ৪ লাখ লোক। সিওপিডি ফুসফুসের এমন এক অবস্থা যা ব্রংকাইটিসসহ নানা ধরণের শ্বাসকষ্ট তৈরি করে। গবেষণায় দেখা গেছে, অ্যাজমার চেয়ে সিওপিডি আট গুণ বেশি ক্ষতিকর। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ২০১৫ সালে মৃত্যুর কারণ হিসেবে চতুর্থ অবস্থানে ছিল সিওপিডি। ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ মেট্রিকস এন্ড ইভালুয়েশন ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক থিও ভস এই গবেষণাটি পরিচালনা করেন। গবেষণার জন্য ১৮৮টি দেশ থেকে…
দৃশ্যটা কল্পনা করুন। অপারেশন থিয়েটারের টেবিলে শুয়ে আছেন একজন রোগী। তাঁর মস্তিস্কে অস্ত্রোপচার চলছে। আর এর মধ্যেই গিটার বাজিয়ে চলেছেন তিনি। বাস্তবে এমনটাই ঘটেছে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর ব্যাঙ্গালোরের এক হাসপাতালে। ভারতীয় সঙ্গীত শিল্পী অভিষেক প্রসাদের হাতের আঙ্গুল নাড়াতে পারেন না। চিকিৎসাবিজ্ঞানের পরিভাষায় যাকে বলে 'ইনভলান্টারি মাসল স্প্যাজম'। এর আরেক নাম 'মিউজিশিয়ান্স ডিসটোনিয়া'। যারা এতে আক্রান্ত, তাদের মাংসপেশিতে মারাত্মক খিঁচুনি এবং ব্যাথা হয়। এর কারণে অভিষেক প্রসাদ তার মধ্যমা, অনামিকা এবং কনিষ্ঠা আঙ্গুল নাড়াতে পারতেন না। এটির চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকরা তাঁর মস্তিস্কে অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন। আর যখন এই অস্ত্রোপচার করা হচ্ছিল, তখন গিটার বাজাচ্ছিলেন অভিষেক প্রসাদ। চিকিৎসকরা তার মস্তিস্কের এক একটি…
বৃহস্পতিবার, 20 জুলাই 2017 07:13

চিকুনগুনিয়ায় বাড়ছে মৃত্যু

> নিউজ ফ্ল্যাশ প্রতিবেদক চিকুনগুনিয়ায় রোগীর মৃতু্য বাড়ছে। অন্য কোনো রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হলে আগের রোগের জটিলতা বাড়ছে।এ কারণে মৃতু্য হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাপক ডা. বে-নজীর আহম্মেদ বুধবার বলেন, ‘যে ঘটনাগুলো নিয়ে মৃতদের স্বজনদের কাছে প্রশ্ন ওঠে কিংবা মানুষের মধ্যেও সন্দেহ ঢুকে যায় তা দূর করার স্বার্থেই এসব মৃত্যুর ঘটনায় ডেথ অডিট করা জরুরি। এতে করে হয়তো চিকুনগুনিয়ার নতুন কোনো প্রভাব বা গতি-প্রকৃতির চিত্রও পাওয়া যেতে পারে; যাতে পরবর্তী সময়ে চিকুনগুনিয়া রোগীদের চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা আরো সহজ হয়ে উঠবে। ’ জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমাদের কাছে ইতিমধ্যেই এমন…
মঙ্গলবার, 04 জুলাই 2017 18:39

কিশোরীর শরীরে পুরুষাঙ্গ

গত কয়েক বছরে চিকিৎসার জন্য যেখানেই গিয়েছে কিশোরীর পরিবার, সেখান থেকেই নিরাশ হয়ে ফিরতে হয়েছে। কিশোরীর শরীরে পুরুষাঙ্গ বদলে তৈরি করা হল স্ত্রীঅঙ্গ! কঠিন এই কাজটিই করে দেখালেন জেলার এক সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা। যার জন্য কার্যত নতুন জীবন পেল বছর এগারোর ওই কিশোরী। না ছেলে না মেয়ে। এমন শারীরিক সমস্যা নিয়ে দিন কাটছিল মালদহের বছর এগারোর এক কিশোরীর। ষষ্ঠ শ্রেণির ওই ছাত্রী যতই বড় হচ্ছিল, ততই দুশ্চিন্তা বাড়ছিল পরিবারের। কারণ শারীরিক গঠন, এমনকী অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গ মেয়েদের মতো হলেও জন্ম থেকেই অদ্ভুতভাবে তৈরি হয়েছিল পুরুষাঙ্গ। সমস্যা আরও বেড়ে গিয়েছিল কিশোরীর পরিবারের আর্থিক অনটনের কারণে। গত কয়েক বছরে চিকিৎসার জন্য যেখানেই গিয়েছে…
আজকাল ইয়ং নারীদের শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ করা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। কেউ চান না শরীরে বাড়তি মেদ। তাই নারীরা বুঝে হোক না বুঝে হোক প্রেগন্যান্সিতেও ওজন কমাতে চেষ্টা করেন। বিশেষজ্ঞগণ গবেষণায় দেখেছেন, যারা প্রেগন্যান্সিতে ডায়েটিং ও এক্সারসাইজ করেন তাদের প্রিম্যাসিউর ডেলিভারি, সন্তানের ওজন কম হওয়াসহ দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। তাই যারা সন্তান নিতে চান তাদের অবশ্যই মনে রাখা দরকার গর্ভস্থ সন্তানের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব হলে সন্তানের নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিতে পারে। তাই কোনো অবস্থাতেই গর্ভাবস্থায় ডায়েটিং করা উচিত নয়। বরং গর্ভাবস্থায় মায়ের অধিক পুষ্টিসম্পন্ন খাবার আহার করা উচিত। বিশেষজ্ঞগণ বলছেন, গর্ভবতী মায়ের পর্যাপ্ত নিউট্রিশন না পেলে জন্ম নেয়া…
গত কয়েক মাস যাবত্ রাজধানী ঢাকাসহ অন্যান্য শহরে জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে। আপাতদৃষ্টিতে সাধারণ ভাইরাস জ্বর মনে হলেও রোগটি আসলে চিকুনগুনিয়া। লক্ষণ ডেঙ্গু জ্বরের মতোই। লক্ষণ সমূহ: চিকুনগুনিয়ার মূল উপসর্গ হলো জ্বর এবং অস্থিসন্ধির ব্যথা। জ্বর অনেকটা ডেঙ্গু জ্বরের মতোই। দেহের তাপমাত্রা অনেক বেড়ে প্রায়ই ১০৪ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠে যায়, তবে কাঁপুনি বা ঘাম দেয় না। জ্বরের সঙ্গে সঙ্গে মাথা ব্যথা, চোখ জ্বালা করা, গায়ে লাল লাল দানার মতো র্যাশ, অবসাদ, অনিদ্রা, বমি বমি ভাব ইত্যাদি দেখা দিতে পারে। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে অস্থিসন্ধিতে তীব্র ব্যথা হয়, এমনকি ফুলেও যেতে পারে। চিকিত্সা: অন্যান্য ভাইরাস জ্বরের মতো…
যে ব্যক্তি প্রথমবার প্রাণীটিকে দেখেন, তিনি প্রথমে এটিকে একটি নৌকো ভেবে ভুল করেছিলেন। দূর থেকে দেখলে মনে হতে পারে সমু্দ্রের জলের মধ্যে বড়সড় কোনও পাথর জেগে উঠেছে। কিন্তু আসলে তা একটি রহস্যময় প্রাণী। আর সমুদ্রের মধ্যে ভেসে ওঠা এই দৈত্যাকার প্রাণীর দেহকে ঘিরে রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়ালো ইন্দোনেশিয়ার সেরাম আইল্যান্ডে। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, আসরুল তুয়ানাকোতা নামে স্থানীয় এক যুবক মঙ্গলবার বিকেলে প্রথম প্রাণীটির দেহ জলে ভাসতে দেখেন। যদিও অন্তত তিন দিন আগে প্রাণীটির মৃত্যু হয়েছিল বলে মনে করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। জায়ান্ট স্কুকইড না নীল তিমি, তা নিয়েও চলছে চর্চা। ছবি সৌজন্যে- পত্তিমুরা মিলিটারি কম্যান্ড যে ব্যক্তি প্রথমবার প্রাণীটিকে দেখেন,…