09212019শনি
মঙ্গলবার, 14 জুন 2016 08:38

'অনেক পুরুষের সেক্সুয়ালি নিজেকে জানার মাধ্যম আমি'

< > বিনোদন ডেস্ক টলিউড নিয়ে বিস্ফোরক তিনি। আবার শরীর, মন, প্রেম, যৌনতা সব কিছু নিয়ে অকপট। তিনি শ্রীলেখা মিত্র। শুক্রবার দৈনিক আনন্দবাজারে প্রকাশিত হয়েছে তার এক সাক্ষাৎকার। চল্লিশ বসন্ত পেরিয়ে এখনও শ্রীলেখা মিত্রকে নিয়ে একটা বয়সের পুরুষ ফ্যান্টাসাইজ করেন… শ্রীলেখা: (প্রশ্ন থামিয়ে দিয়ে) একটা বয়েস? ভুল বলছেন। একটা বয়সের নয়। বিভিন্ন বয়সের পুরুষ আমাকে ফ্যান্টাসাইজ করে। বেশ ভালই লাগে। এনজয় করেন বিষয়টা? শ্রীলেখা: অফকোর্স। যারা এখন ৩০-এর কোঠায় তেমন অনেকে বলেছেন, তাদের বেড়ে ওঠা, সেক্সুয়ালি নিজেকে জানা, তার মাধ্যম হলাম আমি। এটা আমার কাছে একটা বিরাট কমপ্লিমেন্ট। এর রহস্যটা কী? শ্রীলেখা: জানি না। কাউকে কাউকে হয়তো আমি ‘সেক্সাইট’ করি। অনেকে বলেছেন, আমরা রোগা মেয়েদের পছন্দ করি না। কিন্তু এটা নিয়ে আলাদা করে ভাবার সময় নেই। হয়তো আমার মধ্যে একটা কিছু আছে, যার জন্য আমার এত ফ্যান (হাসিতে রহস্য)। আর দর্শক যদি রাতে আমার স্বপ্ন না দেখেন, তাহলে তো অভিনেত্রী হিসেবে সেটা আমার ফেলিওর। এতদিন একা রয়েছেন, কোনও বিশেষ বন্ধু হয়নি? শ্রীলেখা: হয়েছে তো। তবে এই মুহূর্তে ভ্যাকেন্সি চলছে। সেটা আবার হয় নাকি? শ্রীলেখা: হুম। এটাই সত্যি। তবে হোয়াটঅ্যাপে আমি চুটিয়ে ফ্লার্ট করি। ফ্লার্ট করাটা তো হেলদি। জানেন, আমার এখন কিছু বাচ্চাকাচ্চা জুটেছে। আর একটা বয়সের পর বোধহয় বাচ্চা ছেলেদের ভাল লাগে। আর আমার বয়সী যারা তাদের প্রবলেমটা হল, তাদের একটা বউ আছে। সেই বউকে নিয়ে তারা বোর হয়ে যায়। ব্যস এ বার একটু ছুঁকছুঁকানি। হু হু শ্রীলেখা…হলে ভালই হত। আমি কেন সেটাতে হাওয়া দিতে যাব? ম্যারেড ম্যান নট ইন্টারেস্টেড। এই ছুটকো সম্পর্কগুলো কি শরীরী পর্যায়ে যায়? শ্রীলেখা: এটা তো একেবারে ব্যক্তিগত প্রশ্ন। যেতেই পারে, আবার যেতেই হবে এমনটাও বলছি না। যতই হোক আমি তো এখনও সাধু হয়ে যাইনি। আপনার কেমন পুরুষ পছন্দ? শ্রীলেখা: আমার তো একসঙ্গে চার-পাঁচ জন পুরুষ দরকার। যারা বিভিন্ন কাজ করে দেবে। একজন ফাইনান্স দেখবে। কোথায় কোথায় ইনভেস্ট করব সে সব বলে দেবে। আর একজন রোমান্টিক হবে। যে মাঝে মাঝে দু’কলি গান গেয়ে দেবে। কবিতা পড়ে দেবে। কবিতা আর ফিনান্সটা একসঙ্গে খুব চাপের। আর একজন বাজারটা করে দেবে। আমার মেয়ে একবার বলেছিল, মাম্মা যারা কেয়ারিং হবে, তারা হ্যান্ডসাম হবে না, আবার হ্যান্ডসাম হলে কেয়ারিং হবে না কিন্তু। চয়েজ ইজ ইয়োরস। আসলে একজন পুরুষের মধ্যে তো সব কিছু থাকে না। তাই ছড়িয়ে দাও ভালবাসা। বিয়ে করবেন আবার? শ্রীলেখা: না! বিয়ে বা লিভ টুগেদার কোনওটাই নয়। একা থেকে এই স্পেসটা এনজয় করতে শুরু করেছি। যেখানে আমিই আমার বস। আসলে আমার মোমেন্টারি ভাল লাগাটা হতে পারে। আর ভাল লাগলে যা যা হয়, সবই হতে পারে। আমার চারপাশে হয়তো চার-পাঁচজন পুরুষ বন্ধুকে দেখছেন। কিন্তু সত্যিই আমার কেউ নেই। তার জন্য কোনও হা-হুতাশও নেই। আমার খিদে পেলে খাব, ঘুম পেলে ঘুমোব। আবার শরীরী চাহিদা থাকলে সেটা পূরণ করব। তার জন্য প্রেম হতে হবে, এটার কোনও মানে নেই। একটা অ্যাট্রাকশন, ভাল লাগা যথেষ্ট। আর তাতে দু’জনেরই সায় থাকতে হবে। সত্যি বলতে কি, আমার প্রচুর ফ্যান ফলোয়িং। তারা ব্র্যান্ড শ্রীলেখাকে পছন্দ করে। কিন্তু মানুষ শ্রীলেখাকে ক’জন জানতে চায়? বা তার চোখের কোণের কালিটা ক’জন দেখতে পায়? অনস্ক্রিন ন্যুডিটি নিয়ে আপনি কতটা স্বচ্ছন্দ? শ্রীলেখা: এই ব্যাপারটা নিয়ে আমি হয়তো ততটা কনফিডেন্ট নই। জানি না, তেমন জোরালো চরিত্র পেলে হয়তো ভেবে দেখব। আমাকে কেউ এখনও তো সে ভাবে মোটিভেট করেনি। চোখ বন্ধ করে আমার ডিরেক্টর আর ক্যামেরা পার্সনকে ভরসা করতে পারি এমন জায়গাটা থাকতে হবে। অবসর কী ভাবে কাটে? শ্রীলেখা: আমার মেয়ে মাইয়া আছে। আর সাত মাসের ছেলে চিন্তামণি (শ্রীলেখার আদরের সারমেয় তখন তার জামা ধরে টানতে ব্যস্ত)। দিব্যি সময় কেটে যায়। আর তা ছাড়া বই পড়া, সিনেমা দেখা, আমেরিকান সিরিজ, গেম অব থ্রোনস তো আছেই। আর ডিপ্রেশন সামলান কী ভাবে? শ্রীলেখা: মন খারাপ হলে চকোলেট খাই। কিছু না পেলে বিস্কিটের মধ্যে মাখন লাগিয়ে চিনি দিয়েও খেয়ে নিই। দীর্ঘ কেরিয়ারে কোনও আফশোস রয়েছে? শ্রীলেখা: ধুর। আমার এ ফ্ল্যাটের ফ্রম পর্দা টু পাপোশ আমি নিজে করেছি। হোক না সেটা কামালগাজিতে। আমার নিজের তো। তা হলে আর রিগ্রেট কোথায়? < >
পড়া হয়েছে 486 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: মঙ্গলবার, 14 জুন 2016 09:20