08222019বৃহঃ
শুক্রবার, 26 ফেব্রুয়ারী 2016 13:39

মাসজুড়ে লেনদেন ৪ খাতনির্ভর

< > নিউজফ্ল্যাশ প্রতিবেদক দেশের শেয়ারবাজারের বর্তমান লেনদেন চার খাতনির্ভর। প্রকৌশল, ওষুধ ও রসায়ন, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ এবং বস্ত্র খাতের শেয়ারকে ঘিরেই গত এক মাসের বড় অংশের লেনদেন ঘুরপাক খেয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত এক মাসে এ চার খাতের ১২০ কোম্পানির ৬ হাজার ৪৫৮ কোটি টাকা মূল্যের শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে, যা মোটের ৫৬ শতাংশ। শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোকে পৃথক ২০টি খাতভুক্ত শেয়ার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। বর্তমানে ৪২টি মেয়াদি মিউচুয়াল ফান্ড ও দুটি করপোরেট বন্ডসহ তালিকাভুক্ত শেয়ার সংখ্যা ৩৩৩টি। প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ২০ জানুয়ারি থেকে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে প্রকৌশল খাতের ৩২ কোম্পানির ১ হাজার ৮৮১ কোটি টাকা এবং বস্ত্র খাতের ৪২ কোম্পানির ১ হাজার ৮৭৩ কোটি টাকা মূল্যের শেয়ার কেনাবেচা হয়। উভয় খাতের শেয়ার লেনদেনের হার ছিল এ সময়ের মোট লেনদেনের সোয়া ১৬ শতাংশ করে। এ ছাড়া জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের ১৮ কোম্পানির ১ হাজার ৩১৮ কোটি টাকা এবং ওষুধ ও রসায়ন খাতের ২৭ কোম্পানির ১ হাজার ৩৮৬ কোটি টাকা মূল্যের শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে। বাজার-সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১২ সাল পর্যন্ত পুরো শেয়ারবাজার ছিল ব্যাংক, ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক এবং বীমা খাতনির্ভর। ২০১০ সালের ডিসেম্বরে শেয়ারবাজারে ধস নামার দুই বছর পর এ পরিবর্তন এসেছে। এ বিষয়ে বিশ্লেষকরা জানান, সর্বশেষ ধসে বিনিয়োগকারীরা ব্যাংক, ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক এবং বীমা খাতের শেয়ার কিনে দেউলিয়া হয়েছেন। ফলে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে এ তিন খাতের শেয়ার নিয়ে ভীতি কাজ করে। এ অবস্থায় বিকল্প হিসেবে বাকি বড় চার খাতের শেয়ার বেছে নেন তারা। তাতে খাতগুলোর লেনদেন বৃদ্ধির পাশাপাশি শেয়ারগুলোর দরেও তুলনামূলক বেশি ওঠানামা করছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, বড় ধরনের বিনিয়োগ থাকায় ২০১০ ও ২০১১ সালের ধসে ব্যাংকগুলোও বড় লোকসান করেছে। অনেক ব্যাংক এখনও সে ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে পারেনি। পাশাপাশি গত কয়েক বছরে ব্যাংক খাতে একের পর এক জালিয়াতির ঘটনায় আর্থিক খাতের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থা নষ্ট হয়েছে। এ ছাড়া ব্যাংকগুলোর মুনাফাও বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণ করছে না। তাছাড়া গত কয়েক বছরে প্রকৌশল, ওষুধ ও রসায়ন এবং বস্ত্র খাতে সবচেয়ে বেশি কোম্পানি তালিকাভুক্ত হওয়ায় বিনিয়োগকারীদের এ খাতের শেয়ারে বিনিয়োগে অপেক্ষাকৃত বেশি ঝুঁকে পড়ার কারণ বলে মনে করেন শেয়ারবাজারের এ বিশ্লেষক। তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে তালিকাভুক্তির পর প্রায় সবগুলো কোম্পানির অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধির প্রবণতা দেখা গেছে। পরে এসব কোম্পানির শেয়ারদরের ওঠানামাও ছিল তুলনামূলক বেশি। বিনিয়োগকারীরা সিংহভাগ বাজারদরের পরিবর্তন থেকে বেশি মুনাফা করতে চান বিধায় সবাই এসব খাতেই বিনিয়োগে আগ্রহী। শুধু সাধারণ বিনিয়োগকারীরাই নয়, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মধ্যেও এ ধরনের প্রবণতা দেখা যায়। দেশের শীর্ষস্থানীয় এক মার্চেন্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সমকালকে বলেন, শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের মূল লক্ষ্য মুনাফা। বিনিয়োগকারী যেখানে মুনাফা পাবেন, সে শেয়ারেই বিনিয়োগ করবেন। < >
পড়া হয়েছে 694 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: শুক্রবার, 26 ফেব্রুয়ারী 2016 13:43