11232019শনি
বৃহস্পতিবার, 20 জুলাই 2017 20:17

শিশুদের উৎসাহ দিতেই ছবিটি কার্ডে ব্যবহার: বরগুনার ইউএনও

বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী তারিক সালমান—ফাইল ছবি বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী তারিক সালমান—ফাইল ছবি
নিউজ ফ্ল্যাশ ডেস্ক বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাজী তারিক সালমান বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি কোন রকম বিকৃত করে প্রকাশ বা প্রচার করা হয়নি। বরং শিশুদের হৃদয়ে যাতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শগ্রথিত করে দেয়া যায়, শিশুরা যাতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করতে পারে এবং সৃজনশীল ও সহপাঠ্য ক্রমিক কার্যক্রমে উৎসাহ দেওয়ার জন্যই শিক্ষার্থীদের আঁকা ছবি ব্যবহার করে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের আমন্ত্রণপত্রটি ডিজাইন করা হয়। বৃহস্পতিবার বরগুনার ইউএনও গণমাধ্যমেক বলেন, 'আগৈলঝাড়া উপজেলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশুদিবস-২০১৭ উপলক্ষে আয়োজিত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় প্রথম ও দ্বিতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত দুই শিশুর আঁকা দুটি ছবি ব্যবহার করে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৭-এর আমন্ত্রণপত্রটি তৈরি করা হয়েছিল। আমন্ত্রণপত্রের প্রচ্ছদে (ফ্রন্টকাভার) ওই প্রতিযোগিতায় 'গ' গ্রুপে প্রথম হওয়া আগৈলঝাড়া এসএম বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী জ্যোতির্ময়ের আঁকা মুক্তিযুদ্ধের রণক্ষেত্রের একটি ছবি এবং শেষ প্রচ্ছদে (ব্যাককাভার) 'খ' গ্রুপে দ্বিতীয় স্থান অধিকারী আগৈলঝাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী অদ্রিজা করের আঁকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি প্রতিকৃতি ব্যবহার করা হয়েছিল।' তিনি বলেন, 'আমি আগৈলঝাড়া উপজেলায় নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে সরকারিকাজে অনেক সময় কঠোরতা অবলম্বন করতে হয়েছে এবং সরকারের উন্নয়নমূলক কাজে কঠোর তদারকি করার কারণে কোন মহল ক্ষুব্ধ হয়েছে। আর তাদের ইন্ধনেই বাদী এ মামলাটি করেছেন।' এ সম্পর্কে বরগুনার জেলা প্রশাসক ড. মহাঃ বশিরুল আলম বলেন, 'বাস্তবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করা হয়নি। মূলত শিশুদের উৎসাহ দিতেই ওই ছবিটি ব্যবহার করা হয়েছিল।' তিনি বলেন, 'যেহেতু এ বিষয়ে একটি মামলা হয়েছে, তাই আইনগতভাবেই এটির সমাধান হবে।' উল্লেখ্য, কাজী তারিক সালমান বরিশালের আগৈলঝাড়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব পালনকালে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে একটি নিমন্ত্রণপত্র ছাপান। ওই নিমন্ত্রণপত্রের পেছনের পাতায় বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করে লাগানো হয়-এমন অভিযোগে বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও নগর আওয়ামী লীগের ধর্ম-বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ ওবায়েদ উল্লাহ সাজু গত ৭ জুন তার বিরুদ্ধে পাঁচ কোটি টাকার মানহানি মামলা করেন। বরিশালের চিফ মেট্রোমলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতের (সিএমএম) বিচারক মো. আলী হোসাইন মামলাটি আমলে নিয়ে আসামির বিরুদ্ধে সমন জারি করে ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে তাকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন। বুধবার দুপুরে বরিশালের চিফ মেট্রোমলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালত (সিএমএম) থেকে তিনি জামিন পান। এর আগে একই আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছিল।
পড়া হয়েছে 350 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: বৃহস্পতিবার, 20 জুলাই 2017 20:26