10292020বৃহঃ
শিরোনাম:
রবিবার, 27 সেপ্টেম্বর 2020 22:11

বাপা’র সেমিনার: আগের দিন শেষ নদীর জায়গা থেকে সরে যান নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান

নিউজফ্ল্যাশ প্রতিবেদক: জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার সারা দেশের নদী দখল-দূষণকারীদের উদ্যেশে তিনি হুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেছেন,আগের দিন শেষ নদী যারা দখল করে স্থাপনা নির্মাণ করে বসে আছেন, তারা নদীর যায়গা থেকে সরে যান। বাংলাদেশে তৎপর নদী, পানি ও পরিবেশ বিষয়ক সংগঠন, প্রতিষ্ঠান ও সংস্থার জোট ‘নদী দিবস উদযাপন পরিষদ, বাংলাদেশ’ এর উদ্যোগে “বিশ্ব নদী দিবস-২০২০” অনলাইন ভিত্তিক ( অনলাইন মার্চ ফর রিভার) অনলাইন মার্চ উদ্বোধন কালে তিনি একথা বলেন। তিনি নদী রক্ষা নিয়ে আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, আপনারা সভা, সমাবেশ, সংবাদ সম্মেলনসহ বিভিন্ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে দেশের মানুষকে নদী বিষয়ে জাগ্রত করেছেন। জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের কাজকে সহজ করে দিয়েছেন। কোন স্থাপনা, বিল্ডিং করে থাকলে নিজ খরচে তা সরিয়ে নেন। নদীর জায়গা নদীকে ফিরে দিতে হবে যে কোন মূল্যে। দিবসের জাতীয় পর্যায়ে এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় “ভাইরাস মুক্ত বিশে^র জন্য চাই দূষণমুক্ত নদী” (চড়ষষঁঃরড়হ ঋৎবব জরাবৎ ঋড়ৎ ঠরৎঁং ঋৎবব ডড়ৎষফ)। ‘নদী দিবস উদযাপন পরিষদ, বাংলাদেশ’ এর আহ্বায়ক ও বাপা’র নির্বাহী সহসভাপতি ডা. মো. আব্দুল মতিনের এর সভাপতিত্বে এবং বাপা’র সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল এর সঞ্চালনায় অনলাইন মার্চের স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিষদের সদস্য সচিব ও রিভারাইন পিপলের মহাসচিব শেখ রোকন। ‘অনলাইন মার্চ ফর রিভার’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাপা’র যুগ্ম সম্পাদ শারমীন মুরশিদ, আলমগীর কবীর, হাসান ইউসুফ খান, রংপুর তীস্তা নদী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি ফরিদুল ইসলাম ফরিদ, মোংলার পশুর রিভার ওয়াটারকিপার, নুর আলম শেখ, শমসের আলী, বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলনের আনোয়ার সাদাত, সিলেট থেকে আব্দুল করিম কিম, নোঙর এর সুমন সামস, গ্রীনভয়েস এর হুমায়ন কবির সুমন, রিভারাইন পিপলের এর আলতাব হোসেন রাসেল, বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলন এর ড. লুৎফর রহমান, বগুড়া থেকে বাপা নির্বাহী সদস্য জিয়াউর রহমান জিয়া, সারী বাঁচাও আন্দোলনের আব্দুল হাই আল হাদী, শাহাজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^ বিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. জহুরুল হক সাকী প্রমূখ। ডা. মো. আব্দুল মতিন বলেন, নদী দখল,দুষণ ও নদীর পানি প্রবাহ বন্ধ করে স্থাপনা নির্মাণ এখন যেন মামুলি বিষয়ে পরিনত হয়েছে। এখন সবাই নদীকে উপার্জনের উৎসে পরিনত করেছে। এর পেছনে দেশের কিছু রাজনৈতিক ও প্রভাবশালী ব্যক্তিরা জড়িত। তাদের বিরুদ্ধে আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। যত আন্দোলন চলবে ততই দখলদাররা দূর্বল হয়ে পড়বে। আমাদেরকে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও প্রশাসনকে সাথে নিয়ে কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় ভাবে দখলদারদের বিরুদ্ধে আন্দোলন জোরদার করতে হবে। তা’হলে আমরা আগামী ১০ বছর এর মধ্যে দেশের নদীগুলোকে ভালো অবস্থায় দেখতে পাব বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। “বিশ্ব নদী দিবস-এর প্রতিষ্ঠাতা মার্ক এঞ্জেলো’র উদৃতি দিয়ে ডা. মতিন বলেন কোভিড-১৯ এর কারনে “বিশ নদী দিবস এর ইতিহাসে সারা বিশ্বে এ দিকসকে ঘিরে সর্বোচ্চ সংখ্যক (এক হাজার) কর্মসূচী পালিত হচ্ছে। ফলে বর্তমানে বিশ্বের নদীগুলোর অবস্থা অতীতের চেয়ে অনেক ভালো আছে। শেখ রোকন বলেন, আমরা সবাইকেই দেশের নদীগুলোকে রক্ষার আন্দোলনে এক হতে হবে। মার্চ ফর রিভারের মাধ্যমে আমাদের নদীগুলো ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। শারমীন মুরশিদ বলেন, এ দিবসটি যেন আমরা আগামীতেও চালিয়ে যেতে পারি এবং দিবসটি যেন বহু দিবসে পরিনত হয় সে জন্য আমাদের কাজ করতে হবে। পাশা পাশি তিনি নদীর জ্ঞান নদীর চেতনা দেশের মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানান। এছাড়া নদী দিবস উদযাপন পরিষদে বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখবেন। এই অনলাইন মার্চে সারা দেশের নদী কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।
পড়া হয়েছে 19 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: রবিবার, 27 সেপ্টেম্বর 2020 22:18

এ বিভাগের সর্বশেষ সংবাদ

ফেসবুক-এ আমরা