11222019শুক্র
সোমবার, 06 জুন 2016 00:00

উগ্রপন্থীদের হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে মিতু হত্যার মিল রয়েছে

< > নিউজফ্ল্যাশ প্রতিবেদক উগ্রপন্থীদের হত্যাকান্ডের সঙ্গে পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যার মিল আছে। পুলিশ এবং প্রত্যক্ষদর্শীরা এ তথ্য জানিয়েছে। গত দুই বছরে উগ্রপন্থিরা দেশে যেসব হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তার সঙ্গে পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যার মিল রয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরণ এবং সিসিটিভির ভিডিও দেখে বিষয়টি জানিয়েছে পুলিশ। রবিবার সকালে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে চট্টগ্রামের জিইসি মোড়ে যাওয়ার সময় খুন হন মিতু। মোটরসাইকেলে করে আসা তিন হামলাকারী জিইসি মোড়সংলগ্ন মিষ্টির দোকান ওয়েল ফুডের সামনে মাহমুদা আক্তার মিতুকে প্রথমে ছুরি মারে এবং পরে মাথায় গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে চলে যায়। পুরো কাজ শেষ করতে তারা খুবই অল্প সময় নেয়। চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) উপ-কমিশনার (উত্তর) পরিতোষ ঘোষ বলেন, ওই সড়কের কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে হত্যাকারীরা তিনজই ছিল। মোটরসাইকেল নিয়ে তারা আগে থেকেই ওই এলাকায় অবস্থান করছিল বলে ভিডিও দেখে মনে হয়েছে। তারা মাহমুদা আক্তারের শরীরের বিভিন্ন অংশে ছুরিকাঘাত করে। তারপর মাথার বাঁ দিকে গুলি করে মোটরসাইকেলে করে পালিয়ে যায়। পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে কিছুদিন আগে ঢাকার পুলিশ সদরদপ্তরে যোগ দেয়ার আগে গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (এডিসি) হিসেবে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উত্তর-দক্ষিণ জোনের দায়িত্বে ছিলেন বাবুল আক্তার। গত দুই বছরে চট্টগ্রামে জঙ্গি দমন অভিযানে সাহসিকতার জন্য প্রশংসিত হয়েছেন বাবুল আক্তার। বলা হয়, তার তদন্তের জোরেই পুলিশ জেএমবির একটি আস্তানার খোঁজ পায়, গ্রেপ্তার করা হয় ওই জঙ্গি দলের সামরিক শাখার প্রধানকে। তার স্ত্রী খুন হওয়ার পর সন্দেহের তীর জঙ্গি সংগঠনগুলোর দিকে থাকলেও সব ধরনের সম্ভাবনা মাথায় রেখেই পুলিশ এ ঘটনার তদন্ত করছে বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দা পুলিশের উপ কমিশনার মোক্তার আহমেদ। হত্যাকাণ্ডের সময় মিতুর সঙ্গে থাকা তার ছয় বছর বয়সী ছেলে যে বক্তব্য দিয়েছে, তা সিসিটিভি ফুটেজে পাওয়া তথ্যের সঙ্গে মিলে গেছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। < >
পড়া হয়েছে 614 বার। সর্বশেষ সম্পাদন করা হয়েছে: সোমবার, 06 জুন 2016 08:27